• আজ বৃহস্পতিবার। ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সন্ধ্যা ৬:২০

ব্রীজ নির্মাণে অনিয়ম, রাতের আঁধারে চলছে ঢালাইয়ের কাজ!

⏱ | মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০১৯ 📁 রংপুর
bridge

অনিরুদ্ধ রেজা,কুড়িগ্রাম- কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় ব্যাপক অনিয়ম ও রাতের আধারে ঢালাইয়ের মাধ্যমে চলছে ব্রীজ নির্মাণের কাজ। প্রকল্প এলাকায় সাইনবোর্ড সাঁটানোর কথা থাকলেও তথ্য গোপন রাখতে ঠিকাদার সাইনবোর্ড সাঁটায়নি। এ ঘটনায় তথ্য চাইতে গেলে ঠিকাদারের দায়িত্বে থাকা শ্রমিকরা স্থানীয় জনগণের উপর ক্ষিপ্ত হলে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ঐ এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের অধিনে থানাহাট ইউনিয়নে রাধাবল্লভ এলাকায় ৩১ লক্ষ টাকা ব্যয়ে চলছে ১টি ব্রীজ নির্মানের কাজ।

সরেজমিনে রোববার রাত ৮টায় রাধাবল্লভ শেখপাড়ায় ব্রীজ নির্মানে দেখা যায়, রাতের আঁধারে ঢালাইয়ের কাজ চলছে। নির্মাণের খোয়া, বালু ও রড ব্যবহার হচ্ছে নি¤œমানের।

স্থানীয়রা জানান, আমরা এখানকার দায়িত্বে থাকা মোঃ মাহাবুলকে জানালে তিনি কেনো কর্নপাত না করে উল্টো আমাদের বলেন, ‘আপনারা কাজের মানের কি বুঝেন, আপনাদের ব্রীজ দরকার, ব্রীজ হলেই হলো; কাজের মান নিয়ে এত ঘাঁটাঘাঁটির দরকার নেই।’ আমরা রাতে ঢালাইয়ের কাজ বন্ধ করতে গেলে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয় এক পর্যায়ে হাতাহাতিরও ঘটনা ঘটে। আরও জানান, ‘আমরা এখানকার দায়িত্বে থাকা এসওকে বলি, ওনি আমাদের কথা না শুনে কাজ চালিয়ে যাবার অনুমতি দিয়ে চলে যায়।’

এলাকার মহুবর রহমান জানান, ‘সিমেন্ট কম দিয়ে বালু ও পাথর এর পরিমান বেশী দিলে, যখন বলতে যাই তখন দায়িত্বে থাকা শ্রমিকরা আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়।’

রাকিবুল ইসলাম জানান, ‘এখনো কোন ধরনের সাইনবোর্ড লাগানো হয় নাই, আমরা কি দেখে বুঝবো কাজের মান কেমন হচ্ছে। এলাকায় কোন ইঞ্জিনিয়ার আসে না। এসব কথা বলতে গেলে আমাদের বলে, সদরে উঠতে দিবো না। মাটিকাটা মোড়ে ধরবে বলে শ্রমিকরা হুমকি দেয়।’
এ ব্যাপারে এস ও আতিকুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি জানান, ‘এ বছর আমি কোন ব্রীজের কাজের সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম না, এ ব্যপারে আমি কিছু জানি না।’

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকমর্তা রবিউল ইসলাম জানান, ‘রাতে ওয়াল ঢালাইয়ের কাজ চলতেই পারে এতে কোন সমস্যা নাই, কাজ করতে রাত ৭টা ৮টা বাজলে মহাভারত অশুদ্ধ হয় না।’

এদিকে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রেজওয়ানুল হক এন্টারপ্রাইজ এর স্বত্বাধিকারি রেজওয়ানুল হক ভুট্টু অভিযোগ অস্বীকার করলেও সাইনবোর্ডের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সরকারীভাবে সাইনবোর্ড না পাওয়ায় আমি তা লাগাইনি।

এলাকাবাসির সচেতন মহল মনে করেন, জনসাধারণের ব্রীজ নির্মাণের সঠিক মান যাচাই পূর্বক ব্রীজ নির্মাণ করে এ অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করতে হবে।