🕓 সংবাদ শিরোনাম

চীনা রকেটের সেই ধ্বংসাবশেষ আছড়ে পড়লো মালদ্বীপের কাছেঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে চলছে দূরপাল্লার বাসশরীয়তপু‌রে কৃষিঋণ পেতে হয়রানি, ব্যাংকে দালাল চ‌ক্রের দৌরাত্ম্য চর‌মে!স্কটল্যান্ডের সংস‌দে প্রথম বাংলা‌দেশি এমপি নবীগঞ্জের ফয়ছল চৌধুরীসিলেটে চাহিদামতো ইফতারি না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যা!করোনাকালে কিন্ডারগার্টেন ও নন-এমপিও শিক্ষকদের করুণ দশা!ওয়ালটন স্মার্টফোনে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ‘ঈদ সালামি’চাচীর পরকীয়ার কথা জেনে যাওয়ায় ভাতিজাকে নৃসংশ ভাবে খুনকেরাণীগঞ্জে দুই কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার-৪চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের উপর মাদক কারবারিদের হামলা: এস আইসহ আহত-৫

  • আজ রবিবার,২৬ বৈশাখ, ১৪২৮ ৷ ৯ মে, ২০২১, সকাল ১১:১২

তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে জ্বীনের বাদশাসহ আটক ৩!

❏ শুক্রবার, এপ্রিল ২৬, ২০১৯ সিলেট
jiner badsha

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি- সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় জ্বীনের বাদশা পরিচয় দিয়ে সাড়ে তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে জ্বীনের বাদশাসহ তিনজন কে নেত্রকোনা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন,হাফিজ কামরুল ইসলাম তার বাবা আব্দুল কাদির ও মা রেনু বেগম। আটককৃতদের বাড়ি নেত্রকোনা জেলার কালিয়াজুরি উপজেলার দাউদ পুর গ্রামের বাসীন্দা।

জগন্নাথপুর থানার উপ পরিদর্শক এস,আই হাবিবুর রহমান জানান,ব্যবসায়ী এমরান আহমদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার কুট বটতল গ্রামে অভিযান চালিয়ে হাফিজ কামরুল ইসলাম তাঁর বাবা আব্দুল কাদির মা রেনু বেগমকে গ্রেফতার করে। শুক্রবার বিকেলে সুনামগঞ্জ জেল হাজতে পাঠানো হয়।

তিনি আরো জানায়, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর বাজারের হোটেল ও স্যানিটারি মালামাল বিক্রেতা মাওলানা এমরান আহমদ এর সাথে ২০১৮ সালে জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের এনামুল হাসানের মাধ্যমে পরিচয় হয় নেত্রকোনা জেলার কালিয়াজুরি উপজেলার দাউদ পুর গ্রামের হাফিজ কামরুল ইসলামের সঙ্গে।কামরুল ইসলাম সৈয়দপুর গ্রামের লন্ডন প্রবাসী রহমত আলীর বাড়ীতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করত।

কামরুল ইসলাম নিজেকে জ্বীনের সাথে সুসম্পর্ক রয়েছে বলে
এমরান আহমদকে জানায়। তাঁর ঘরে বিভিন্ন ড্রামে ১৫০০কোটি টাকা রয়েছে। সে টাকা নিতে হলে সাড়ে তিন কোটি টাকা জ্বিনের জন্য শিরনী হিসেবে দিতে হবে। এই ফাঁদে ফেলে ১৫ শ কোটি টাকা দেয়ার কথা বলে বিভিন্ন কিস্তিতে সাড়ে তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। এবিষয়ে এমরান আহমদ জগন্নাথপুর থানায় মামলা দায়ের করে।

জগন্নাথপুর থানার পরিদর্শক তদন্ত নব গোপাল দাস বলেন,পুলিশ ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছে। এ ঘটনায় ৬ টি ড্রাম উদ্বার করেছে।