সংবাদ শিরোনাম

পণ্যবাহী ট্রাক-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১খালেদার জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি নেই, হয়নি বিদেশ যাওয়ার সিদ্ধান্তওপ্রধানমন্ত্রী কোরআন-সুন্নাহর বাইরে কিছু করেন না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীমির্জাপুরে গণহত্যা দিবস উপলক্ষে মোমবাতি প্রজ্জ্বলনশনিবার থেকে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনাস্পুটনিক-৫ টিকা একে-৪৭’র মতো নির্ভরযোগ্য: পুতিনডোপটেস্টো রিপোর্ট: স্পিডবোটের চালক শাহ আলম মাদকাসক্তচাঁদপুরে ঐতিহাসিক বড় মসজিদে লক্ষাধিক মুসল্লির সালাতে ‘জুমাতুল বিদা’ রাঙামাটিতে ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ দুই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আটক! আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্যদের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষ : নারীসহ ৯জন আহত

  • আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিএনপির অনেকেই কাজ না পেয়ে আত্মহত্যা করছেন: মির্জা ফখরুল

৬:০০ অপরাহ্ন | রবিবার, এপ্রিল ২৮, ২০১৯ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- দলে এবং দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের অনেকের মানবেতর জীবন যাপনের প্রসঙ্গ তুলে ধরেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রবিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) একাংশের বার্ষিক কাউন্সিলে তিনি এ নিয়ে কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের বহু ছেলে আছেন যারা ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল বা বিএনপি করেন। তারা ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন, হকারের কাজ করছেন এবং অনেকে কাজ না পেয়ে আত্মহত্যা করছেন। এটা বাস্তবতা।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘ন্যায়ের জয় অবশ্যই হবে। অন্যায় পরাজিত হবে। সত্যের জয় হবেই। আর বাংলাদেশের যে রাজনৈতিক ইতিহাস এবং জনগণের সংগ্রামের যে ইতিহাস, সেটা কখনো ব্যর্থ হয়নি। জয়ী আমরা হবোই।’

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে ভালোভাবে চেনার আমাদের আর কিছু নেই। আমরা আওয়ামী লীগকে খুব ভালো করেই চিনি। আমরা আমাদের সমস্ত অধিকার দিয়ে চিনেছি। জীবন দিয়ে চিনেছি। আমরা জানি আওয়ামী লীগ কী জিনিস! তাদের এই আচরণ থেকে জনগণ মুক্তি পাবে।

বিএনপি মহাসচিবের দাবি, বাংলাদেশে একটা গভীর সমস্যা বিরাজ করছে। এই সংকট সৃষ্টি হয়েছে জাতীয় জীবনে, সমাজ জীবনে, রাষ্ট্রীয় এবং আমাদের ব্যাক্তি জীবনেও।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে ফখরুল বলেন, সাংবাদিকতা নিঃসন্দেহে একটি মহান পেশা। তাই আপনাদেরও ভাবতে হবে, দেশে রাজনীতি কেমন চলছে আর বিশ্বের রাজনীতিতে কী ঘটছে। অন্যান্য জাতি কী অবস্থার মধ্যে আছে, আমরা কী অবস্থার মধ্যে আছি। আপনাদেরকে এসব বিষয়ে ভাবতে হবে। সাংবাদিকতার স্বাধীনতা, মানুষের স্বাধীনতা, জাতির স্বাধীনতা একটি অপরটির সঙ্গে জড়িত।

তিনি বলেন, আমি খুব ব্যক্তিগতভাবে জানি, আপনাদের অনেক সংবাদকর্মীর কাজ নেই। আমি ব্যক্তিগতভাবে জানি যে অনেক সংবাদকর্মী অত্যন্ত আর্থিক কষ্টে আছেন। এটাই হচ্ছে এখনকার রাষ্ট্রব্যবস্থা ও রাজনীতির পরিণতি।

ফখরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, আজকে রাজনীতিটা হচ্ছে না। অনেকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, ব্যবসা-বাণিজ্য, বাড়িঘর শেষ হয়েছে এবং অনেককে প্রাণও দিতে হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই ‘ফ্যাসিবাদী’ সরকার রাষ্ট্রযন্ত্রকে পুরোপুরিভাবে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বিচারব্যবস্থা ও প্রশাসন দখল করে নিয়েছে। গণমাধ্যমের মালিকানা পুরোপুরিভাবে তারা নিয়ন্ত্রণ করছে এবং সংবাদমাধ্যমের যে সংগঠন, সেই সংগঠনকে বিভক্ত করে দিয়ে তারা সেখানেও পুরোপুরিভাবে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে।