• আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নড়াইল হাসপাতালের সেই ৪ চিকিৎসক ওএসডি

১১:০০ পূর্বাহ্ন | সোমবার, এপ্রিল ২৯, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- বিনা অনুমতিতে হাসপাতালে অনুপস্থিত থাকা নড়াইল জেলা সদর হাসপাতালের চার চিকিৎসককে ওএসডি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। একইসঙ্গে চার চিকিৎসককে কারণ দর্শানোর নোটিশও দেওয়া হয়েছে।

নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা আচমকা ওই হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে কোনো চিকিৎসককে উপস্থিত না পাওয়ার পর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হাসপাতালের চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নিলো।

রোববার (২৮ এপ্রিল) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের পার্সোনাল শাখা-৩ অধিশাখার উপ সচিব শামীমা নাসরিন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

ওএস‌ডি চিকিৎসকরা হলেন- নড়াইল সদর হাসপাতালের সার্জারির সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মো. আখতার হোসেন, কার্ডিওলজির জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মো. শওকত আলী ও ডা. মো. রবিউল আলম এবং মেডিকেল অফিসার ডা. এ এসএম সায়েম।

ওএস‌ডি চিকিৎসকদের সাত দিনের মধ্যে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান অন্যথায় পরবর্তী কর্মস্থল হতে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে অবমুক্ত হবেন বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

তাদের ওএসডি করার প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত তাদের স্বাস্থ্য অধিদফতর, মহাখালীতে ওএসডি করা হয়েছে। আদেশ জারির সাত কর্মদিবসের মধ্যে নতুন কর্মস্থলে যোগদান করতে হবে। তা না হলে এই কর্মস্থল থেকে তারা তাৎক্ষণিক অবমুক্ত হবেন।

ওই চিকিৎসকদের প্রত্যেককে পৃথকভাবে পাঠানো কারণ দর্শানোর নোটিশে বলা হয়েছে, আপনি গত ২৪ এপ্রিল কর্তৃপক্ষের বিনা অনুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন।

“আপনার উক্ত কার্যকলাপ সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ মোতাবেক অসদাচরণের শামিল। আপনার এহেন আচরণের বিরুদ্ধে কেন বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তা অত্র পত্র প্রাপ্তির তিন কর্মদিবসের মধ্যে ব্যাখ্যা প্রদান করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হল।”

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ওয়ান ডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি এবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নড়াইল-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তার বেড়ে ওঠা ও বসবাস নড়াইল শহরে। ওই শহরেই জেলা সদর হাসপাতাল।

সম্প্রতি মাশরাফির ওই হাসপাতাল পরিদর্শনের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসকদের না পেয়ে রোগী সেজে তিনি হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন।

এদিন বিকালে হাসপাতাল ঘুরে যাওয়ার পর রাত সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতালের কর্মকর্তাদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করেন মাশরাফি। হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে ওই সভায় জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, পুলিশ সুপার মো. জসিম উদ্দিন, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আব্দুস শাকুর, সিভিল সার্জন ডা. আসাদ-উজ-জামানমুন্সি, হাসপাতালের আরএমও ডা. মশিউর রহমান বাবু উপস্থিত ছিলেন।