যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করে বহিষ্কৃত হলেন চিকিৎসক, সহকর্মীদের প্রতিবাদ

Gazipur
❏ সোমবার, এপ্রিল ২৯, ২০১৯ ঢাকা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর: যৌন হয়রানি করা চিকিৎসকে কোন শাস্তি না দিলেও যে চিকিৎসক প্রতিবাদ করেছেন তাকে বহিষ্কার করেছেন হাসপাতাল কতৃপক্ষ! এমনই এক ঘটনার শিকার হয়েছেন গাজীপুর মহানগরের তায়রুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বুলবুল আহমেদ।

এরই প্রতিবাদে সোমবার(২৯এপ্রিল)চিকিৎসকের সহপাঠী ও সহকর্মীরা হাসপাতাল প্রাঙ্গনে অবস্থান নিয়ে কর্মবিরতী পালন করেছেন। ওই কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সংগঠন ইচিব-র সাধারণ সম্পাদক বুলবুল আহমেদকে হাসপাতাল থেকে বহিষ্কারের প্রতিবাদে সোমবার তারা ক্যাম্পাসের ভেতরে এ কর্মসূচি পালন করেন।

সাধারণ ইন্টার্ন চিকিৎসকদের দাবি, যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় প্রশাসনের রোষানলে পড়েছেন বুলবুল। কারণ ইভটিজার মামুন কলেজ কর্তৃপক্ষের আস্থাভাজন হওয়ায় তাকে শাস্তি না দিয়ে বুলবুলকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তারা কলেজ কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তের বিরোধিতা এবং ওই ইন্টার্ন চিকিৎসকের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ের আন্দোলন করছেন।

বহিষ্কৃত ইচিব নেতা ও ইনটার্ন চিকিৎসক বুলবুল আহমেদ জানান, গত ফেব্রুয়ারিতে ওই প্রতিষ্ঠানে ইনটার্ন চিকিৎসক মামুন অপর এক নারী ইনটার্ন চিকিৎসককে বিভিন্নভাবে ইভটিজিং করে। পরে তাকে মেডিকেলের ভেতর বিষয়টি নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে উত্তেজিত হয়ে ওঠে। একপর্যায়ে তাকে বুলবুল থাপ্পড় মারেন। বিষয়টি মেডিকেল কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে গত ২১ এপ্রিল বুলবুলকে ছয় মাসের বহিষ্কার আদেশ দেন।

এ বিষয়ে তায়রুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজে ও হাসপাতালের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. আব্দুল খালেক আকন্দ বলেন, মেডিকেল কলেজে শৃঙ্খলা কমিটি বুলবুলকে বহিষ্কার করেছে। তবে সে যদি পুনর্বিবেচনার আবেদন করে শৃঙ্খলা কমিটি বিষয়টি বিবেচনা করবে। ইনটার্ন চিকিৎসকদের এই কর্মবিরতির কোনো যৌক্তিকতা নেই। তাদের এই আন্দোলনে মেডিকেল কলেজে কোনো প্রভাব পড়বে না।