🕓 সংবাদ শিরোনাম

চীনা রকেটের সেই ধ্বংসাবশেষ আছড়ে পড়লো মালদ্বীপের কাছেঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে চলছে দূরপাল্লার বাসশরীয়তপু‌রে কৃষিঋণ পেতে হয়রানি, ব্যাংকে দালাল চ‌ক্রের দৌরাত্ম্য চর‌মে!স্কটল্যান্ডের সংস‌দে প্রথম বাংলা‌দেশি এমপি নবীগঞ্জের ফয়ছল চৌধুরীসিলেটে চাহিদামতো ইফতারি না দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যা!করোনাকালে কিন্ডারগার্টেন ও নন-এমপিও শিক্ষকদের করুণ দশা!ওয়ালটন স্মার্টফোনে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ‘ঈদ সালামি’চাচীর পরকীয়ার কথা জেনে যাওয়ায় ভাতিজাকে নৃসংশ ভাবে খুনকেরাণীগঞ্জে দুই কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার-৪চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের উপর মাদক কারবারিদের হামলা: এস আইসহ আহত-৫

  • আজ রবিবার,২৬ বৈশাখ, ১৪২৮ ৷ ৯ মে, ২০২১, সকাল ১১:২৮

মাশরাফির সমালোচনা করিনি, বলেছি ডাক্তাররা ফাজিল!

❏ বুধবার, মে ১, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ
murkho

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ গত ২৫ এপ্রিল বিকেলে হঠাৎ নড়াইল আধুনিক সদর হাসপাতালে ঝটিকা সফরে যান নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। সেসময় মাশরাফির সঙ্গে চিকিৎসকের ফোনালাপ হয়। পরে সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ পেতেই শুরু হয় তুমুল আলোচনা-সমালোচনা।

অনেকে সাংসদ মাশরাফির এমন কাণ্ডে বাহবা দিলেও অনেকেই তার সমালোচনা করেন। তবে তার সমালোচনা করতে গিয়ে উল্টো নিজেই তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও নাগরিক টিভির প্রধান নির্বাহী ডা. আব্দুন নূর তুষার।

তবে তুষারের দাবি, তিনি মাশরাফির বিরুদ্ধে কোনো কথা বলেন নি। উল্টো মাশরাফির সমালোচনাকারীদের ‘গোমূর্খ’ বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।
মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) বিকেলে ডা. আব্দুন নূর তুষার তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে আরেকটি স্ট্যাটাস দেন।

সময়ের কণ্ঠস্বরের পাঠকদের উদ্দেশে তুষারের ফেসবুক স্ট্যাটাস হুবহু তুলে ধরা হলো-

ফেসবুক পোস্টে তুষার লিখেন, ‘কিছু গোমুর্খ বলার চেষ্টা করছে আমি মাশরাফির বিরুদ্ধে কথা বলেছি। মোটেও না। আমি বলেছি ডাক্তাররা ফাজিল, তাদেরকে চাবকায়ে সোজা করা দরকার। তাদের মেরুদন্ডহীন বলেছি।

আমি কেবল কিছু প্রশ্ন তাকে সংসদে করতে বলেছি যাতে সমস্যার সমাধান হয়। সংসদ সদস্য তো মাশরাফি, আমি না। প্রশ্নগুলি তিনি করতে পারবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। নাহলে দেখা যাবে কিছু সাসপেন্ড হলে আরো কিছু ডাক্তার আসবে। তারাও সাসপেন্ড হবে। সমাধান হবে না।

আমার লেখার লাইন থেকে লাইন পড়েন, একটা শব্দও পাবেন না যেখানে আমি কাউকে সমালোচনা করেছি। সত্য অনেকেরই ভাল লাগে না।
সমস্যা কি সেটাও জানার দরকার নাই। সমস্যা না জানলে সমাধান কি করে হবে?

আমার লেখা ভুল হলে এটা নিয়ে এত কথার কি আছে? ইগনোর ইট। উপেক্ষা করেন। আমার কথা ঠিক হলে সমস্যা দুর করার জন্য কাজ করেন। সবচেয়ে অদ্ভুত হলো অনলাইন পোর্টালগুলি। নানা রকম হেডলাইন দিয়ে অন্যের স্ট্যাটাস পাবলিশ করে ক্লিক বাড়ায়।

আমি যা চেয়েছি সেটা কিন্তু করে ফেলেছি। আপনারা সকলে সমস্যার পক্ষে বিপক্ষে কথা বলেছেন। চান বা না চান, চিকিৎসকদের সমস্যা নিয়ে ভেবেছেন।

আমি তো বলেছি আমার দোয়া মাশরাফির প্রতি, আল্লাহ যাতে তাকে আরো বড় করেন এবং প্রশ্নগুলি করতে পারেন। আর কেউ পারলে তো আর তাকে বলতাম না।

গোমুর্খদের জন্য দোয়া। তারা বাংলা পড়ে অর্থ বুঝতে পারুক। তাদের বুদ্ধি হোক। তাদের জন্য দোয়া করলেও তারা মাইন্ড করে।
মাশরাফির জন্য চিরকালই দোয়া। সে সুস্থ থাকুক, আদর্শ নড়াইল আদর্শ দেশ গড়ুক। বিশ্বকাপ জিতুক।
যদি পারে প্রশ্নগুলি করুক সংসদে।’

উল্লেখ্য, নড়াইল সদর হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে তিনি হাজিরা খাতায় বেশ কয়েকজন চিকিৎসকের হাজিরাও দেখতে পান নি মাশরাফি। নার্সও ছিলেন মাত্র দুই জন। তিনি তাৎক্ষণিক মোবাইল ফোনে কথা বলেন অনুপস্থিত কয়েকজন চিকিৎসকের সাথে। কিন্তু তারা কেউ সদুত্তর দিতে পারেন নি।