শেষপর্যন্ত নারী দেহরক্ষীকেই বিয়ে করলেন থাই রাজা


❏ বৃহস্পতিবার, মে ২, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- নিজের ব্যক্তিগত দেহরক্ষী বাহিনীর উপপ্রধানকে শেষ পর্যন্ত বিয়ে করে তাকে রানির মর্যাদা দিয়েছেন থাইল্যান্ডের রাজা মাহা ভাজিরালংকর্ন।

বুধবার (১ মে) রাজ পরিবার থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয় যে, নিজের ব্যক্তিগত নিরাপত্তাবাহিনীর উপ-প্রধান সুথিদা তিদজাইকে বিয়ে করেন তিনি। খবর বিবিসির।

শনিবার (৪ মে) আনুষ্ঠানিকভাবে সিংহাসনে আরোহণ করবেন ভাজিরালংকর্ন। এর আগ দিয়ে নিজের বিয়ের খবরে সবাইকে চমকে দিলেন তিনি। এর আগে আরও তিনবার বিয়ে হয়েছিল তার। বর্তমানে তিনি সাত সন্তানের জনক।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে তার বাবা ও সাবেক রাজা ভূমিবল আদুলাদেজের মৃত্যুর পর সাংবিধানিকভাবে রাজার দায়িত্ব পালন করে আসছেন তিনি।

রাজ পরিবারের এক বিবৃতিতে বলা হয়, রাজা ভাজিরালংকর্ন তার স্ত্রী জেনারেল সুথিদা ভাজিরালংকর্ন না অযোদ্ধাকে তার রানি হিসেব স্বীকৃতি দিয়েছেন। এখন থেকে রাজ পরিবারের অংশ হিসেবে তিনি রাজ উপাধিতে ভূষিত হবে ও রাজ পরিবারের মর্যাদা ভোগ করবেন তিনি।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরে রানি সুথিদা ও রাজা ভাজিরালংকর্নের মধ্যকার সম্পর্ক নিয়ে জল্পনা চলছিল। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাদের একসঙ্গে দেখা গেছে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে কখনোই এ সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি তারা।

বুধবার তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান জাতীয় টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রাজ পরিবারের বিভিন্ন সদস্য ও রাজার বিভিন্ন উপদেষ্টারা। অনুষ্ঠানে রানির মাথায় পবিত্র পানি ঢালতে দেখা যায় রাজাকে। এরপর বিয়ের রেজিস্ট্রিতে স্বাক্ষর করেন তারা।

উল্লেখ্য, ভাজিরালংকর্ন ২০১৪ সালে সুথিদা তিদজাইকে তার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী বাহিনীতে নিয়োগ দেন। এর আগে তিদজাই থাই এয়ারওয়েজের ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট ছিলেন।

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে রাজা ভাজিরালংকর্ন সুথিদাকে রাজকীয় থাই সেনাবাহিনীর পূর্ণ জেনারেল র্যামঙ্ক প্রদান করেন। পরের বছর তার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী বাহিনীর ডেপুটি কমান্ডার করেন। পাশাপাশি সুদিথাকে লেডির সমার্থক রাজকীয় উপাধি থানপুয়িং মর্যাদায় অভিষিক্ত করেন।