• আজ বৃহস্পতিবার। ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৬:১৭

পাল্টেগেছে পূর্বাভাস: কিছুক্ষণের মধ্যেই পুরীতে আছড়ে পড়বে ফণী

⏱ | শুক্রবার, মে ৩, ২০১৯ 📁 আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- পূর্বাভাসের চেয়ে ৫-৬ ঘণ্টা আগেই স্থলভাগে আছড়ে পড়তে পারে ফণী। গত তিনদিন উপগ্রহ চিত্রে গতিবিধির ওপর নজর রাখার পর ভারতের আবহাওয়া অফিস জানিয়েছিল, শুক্রবার বেলা তিনটার সময় বঙ্গোপসাগর থেকে স্থলভূমিতে ঢুকবে ঘূর্ণিঝড় ফণী।

এখন সেই পূর্বাভাস বদলে দিল্লির ঘূর্ণিঝড় সতর্কতা কেন্দ্রের প্রধান মৃত্যুঞ্জয় মহাপাত্র জানিয়েছেন, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ১২টার মধ্যে যে কোন সময় ফণী আছড়ে পড়বে পুরী সংলগ্ন গোপালপুরে। এরপর সেটি পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে দক্ষিণবঙ্গের ওপর দিয়ে বাংলাদেশের দিকে চলে যেতে পারে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার কিছু পরে পুরীতে ফণী আছড়ে পড়তে পারে বলে জানিয়েছে মৌসম ভবনের একটি সূত্র।

ফণী মোকাবিলায় ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশে ইতোমধ্যেই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। জয়েন্ট টাইফুন ওয়ার্নিং সেন্টার-এর হিসাব অনুযায়ী, গত ২০ বছরে এই অঞ্চলের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সামুদ্রিক ঝড়ে পরিণত হয়েছে ফণী। এর আগে ১৯৯৯ সালে এই মাত্রায় পৌঁছানো সুপার সাইক্লোনে প্রায় ১০ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

কেন্দ্র ও বিভিন্ন রাজ্যের প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে বৃহস্পতিবার বিকালে দিল্লিতে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৈঠকে ছিলেন ক্যাবিনেট সচিব পি কে সিনহা ও পিএমও পদস্থ আমলা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব রাজীব গৌবা। এ ছাড়া ছিলেন আবহাওয়া দফতর ও এনডিআরএফের শীর্ষ কর্মকর্তারা।

নিউটাউনের সভায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কাল আরও একটা ঝড়ের পূর্বাভাস রয়েছে। উপকূল এলাকা, মেদিনীপুর, ২৪ পরগনা, হাওড়ার মতো ৭-৮টি জেলায় সবাইকে ২৪ ঘণ্টা সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার মুখ্যসচিবের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারের বিভিন্ন দফতর বৈঠক করে আগাম প্রস্তুতির রূপরেখা তৈরি করছে। সব জেলাকে সেই নির্দেশও দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কলকাতা বিমানবন্দরে সব বিমান ওঠানামা বন্ধ রাখা হচ্ছে। ভুবনেশ্বর বিমানবন্দর বৃহস্পতিবার রাত ১টা থেকে বন্ধ থাকছে ২৪ ঘণ্টা।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় ফণী বাংলাদেশের উপকূলের আরও কাছাকাছি এসেছে। বৃহস্পতিবার (২ মে) বিকাল ৫টার দিকেও ঘূর্ণিঝড়টি ৭৯০ কিলোমিটার দূরে ছিল। বর্তমানে এটি মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৭১৫ কিলোমিটার দূরে রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ফণীর কারণে উপকূলীয় অঞ্চলে জলোচ্ছ্বাসও হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদফতরের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, ঘূর্ণিঝড় ফণী উপকূলের আরও কাছে এসেছে। আগামীকাল সন্ধ্যার দিকে এটি বাংলাদেশ অতিক্রম করবে। সামনে অমাবস্যা থাকায় ঘূর্ণিঝড় ফণীর কারণে জলোচ্ছ্বাসও হতে পারে।

তিনি জানান, ফণী এখন মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৭১৫ ও পায়রা বন্দর থেকে ৭৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। বর্তমানে পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে এর গতিবেগ ঘণ্টায় ১৬০ থেকে ১৮০ কিলোমিটার। তবে বাংলাদেশে আঘাত হানার সময় এর গতি কমে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।