কেরোসিনের আগুনে পুড়িয়ে গৃহবধুকে হত্যা, স্বামীসহ আটক-৩

১২:৩৪ পূর্বাহ্ন | শনিবার, মে ৪, ২০১৯ চট্টগ্রাম
greftar

আশিক বিন রহিম, চাঁদপুর প্রতিনিধি।। ফেনীর সোনাগাজীতে আলোচিত নুসরাত হত্যার রেস কাটতে না কাটতরই এবার চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে কেরোসিনের আগুলে নিভে গেলো আরেক নারীর প্রাণ। তবে দীপিকা আশ্চার্য্য মনিকা (২৬) নামের এই গৃহবধূ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতে তার স্বামী ও শশুরবাড়ি লোকেরা। স্বামীর দেয়া আগুনে অগ্নিদগ্ধ হয়ে ৪ দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক) এ চিকিৎসাধীন থাকার পর শুক্রবার (৩ মে) মৃত্যুর কাছে পরাজিত কয় মনিকা। এইদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন নিহতের বড় ভাই অরবিন্দ আশ্চার্য্য।

নিহত গৃহবধু দীপিকা নরসিংদী জেলার মাধবদী পৌরসভার ছোট মাধবদী গ্রামের স্বর্গীয় শ্রী রনজিত আশ্চার্য্য। তাদের দাম্পত্য জীবনে স্বস্তিকা আশ্চার্য্য নামের ৩ বছর বয়সি একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) রাতে দীপিকা আশ্চার্য্যের গায়ে কেরোসিন ঢেলে তার স্বামী বিপুল আশ্চার্য আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২ মে) দীপিকার বড় ভাই তিনজনকে আসামি করে হাজীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই দিনই সন্ধ্যায় হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে গৃহবধুর স্বামী, শাশুড়ি ও ভাসুরকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন ৫নং ওয়ার্ডের মকিমাবাদ গ্রামের মৃত রঞ্জিত আশ্চার্য্যের ছোট ছেলে দীপিকার স্বামী বিপুল আচার্য্য (৩৫), বিপুলের বড় ভাই স্বজন আচার্য্য (৪৫) ও তার মা সন্ধ্যা আচার্য্য (৬০)।

শুক্রবার (৩ মে) হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ আসামীদেরকে চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করে। আদালতের বিচারক জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কফিল উদ্দিন আসামীদের জামিন না মঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এই ঘটনা ও মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, গত ৮ বছর পূর্বে মনিকার সাথে পারিবারিকভাবে বিপুলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর হাঠাৎ করেই তাদের দাম্পত্য জীবনে কলোহ দেখা দেয়। এরই সূত্র ধরে দীপিকার স্বামী বিপুল আশ্চার্য্য ও উল্লেখিতরা ৩০ এপ্রিল গভীর রাতে দীপিকার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে।

পরে বিষয়টিকে তারা দূর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিতে রাতেই মনিকাকে প্রথমে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরবর্তীতে সেখান থেকে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। মনিকার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় এবং তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় পরদিন তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটি ভর্তি করা হয়। এভাবে ৪দিন মৃত্যুে সাথে লড়াই করে শুক্রবার (৩ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় দীপিকা মৃত্যুবরণ করেন।

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন জানান, অগ্নিদগ্ধ মনিকা নিহত হওয়ার খবরটি আমরা নিশ্চিত হয়েছি। আটক ৩ জন আসামীকে কোর্টের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। তার ভাই অরবিন্দ আশ্চার্য্য যে মামলাটি করেছে, তাতে হত্যার চেষ্টা ও হত্যার কথা উল্লেখ রয়েছে। তাই পুনরায় মামলা করতে হবেনা।