সংবাদ শিরোনাম

পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসির ফল প্রকাশে সংসদে আইন পাসশৈত্যপ্রবাহে কাপছে হিলিবাসী, হেডলাইট জ্বালিয়ে চলছে যানবাহনকোকো বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে নিজেকে স্মরণীয় করে রেখেছেন: মির্জা ফখরুলচাঁদপুরে ভাঙা ঘরে ৭ সদস্যের সংসার: মাথা গোঁজার ঠাঁই চান অসহায় জাফরবাইডেনের শপথ অনুষ্ঠান: ২০০ নিরাপত্তারক্ষী করোনায় আক্রান্তআশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পেলেন দুই বারের নির্বাচিত সাবেক এমপিএবার মেলানিয়াও ‘ছেড়ে গেলেন’ ট্রাম্পকে!, ভিডিও ভাইরালকরোনায় মৃতের পরিবারকে ১০ লাখ টাকার চেক দিল ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডপাগলা মসজিদের সিন্দুকে এবার দুই কোটি ৩৮ লাখ টাকা, মিলেছে স্বর্ণালঙ্কারওবগুড়ায় মোটরসাইকেল চোর চক্রের ২ সদস্য গ্রেফতার

  • আজ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কুড়িগ্রামে ভাঙনের মুখে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ

◷ ৮:০৭ অপরাহ্ন ৷ শনিবার, জুলাই ১৩, ২০১৯ সমস্যা ও সমাধান
badh vangon

ফয়সাল শামীম:স্টাফ রিপোর্টার: কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার সারডোব এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে ৪০টি গ্রাম প্লাবিত হবার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে গত বছর মেরামত করা অংশের কয়েকটি স্থানে ধবস নেমেছে। বাঁধের ৩-৪ ফুট অংশ অবিশিষ্ট আছে। যে কোন মুহূর্তে ভেঙে যেতে পারে।

বাঁধটি ভেঙে গেলে পানি ঢুকে গ্রামের পর গ্রাম প্লাবিত হবার পাশাপাশি ফসলহানি ও নদী ভাঙনের কবলে পড়ার আশঙ্কা করছেন নদী তীরের মানুষ। কয়েক হাজার মানুষ ঝুঁকির মুখে থাকলেও পানি উন্নয়ন বোর্ড ও প্রশাসনের কোন কর্মকর্তা পরিদর্শন না করায় ােভ দেখা দিয়েছে এলাকাবাসীর মনে। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, বাঁধটি রায় বালুর বস্তা ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সরেজমিন জানা গেছে, গত দু’বছরের বন্যায় ধরলা নদীর তীরবর্তী সারোডোব ও বড়ভিটা এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের কয়েকটি স্থানে ভেঙে বিস্তৃর্ন এলাকা প্লাবিত হয়। গত বছর গ্রামবাসীদের উদ্যোগে বাঁধ মেরামত করে কোনমতে চলাচল উপযোগী করা হয় বাঁধের উপর দিয়ে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ কুড়িগ্রাম-ফুলবাড়ী সড়কটি। গত বছর বাঁধের রাস্তার অর্ধেক অংশ নদীতে বিলীন হওয়ায় বাকী অংশে বাঁশের পাইলিং দিয়ে ভাঙন রোধের চেষ্টা করা হয়।

গ্রামবাসীরা চাঁদা তুলে এই কাজ শুরু করে। পরে পানি উন্নয়ন বোর্ড বালির বস্তা দিয়ে সহায়তা করে। তবে এতো কিছুর পরেও রা পাচ্ছেনা বাঁধটি। শুক্রবার সরেজমিন বাঁধটি পরিদর্শন করে দেখা গেছে ৪টি স্পটে বালির বাঁধটি ধবসে গেছে। যে কোন মুহূর্তে বাঁধটি ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা করছে গ্রামবাসী। অনেকেই আতংকে আছেন কখন ভাঙে বাঁধটি। বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ অংশের ২শ ফুট উত্তরে কিছু বস্তায় বালু ভরাচ্ছে মজুররা। তবে পাউবোর কাউকে পাওয়া যায়নি।

সারডোব গ্রামের বাসিন্দা শফিকুল ইসলাম জানান, বাঁধটি ভেঙে গেলে হলোখানা, রাঙামাটি, চর কাগজিপাড়া, ভাঙামোড়, খোঁচাবাড়ি, চর বড়াইবাড়ি, লীকান্ত, দ: রাঙামটি, মন্ডলপাড়াসহ প্রায় ৪০টি গ্রাম প্লাবিত হবে। একই গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল শালেত বলেন, ‘বাঁধ ভাঙি যাবার নাগছে, ওয়াবদার লোক দেইখপ্যারও আসিল না।’ বাঁধ ভাঙার আতংকে অনেকের নির্ঘম কাঠছে রাত। বাঁধের সংলগ্ন বাসিন্দা শাহ আলম বলেন, ‘চপুর আইত নিন্দ পাইরব্যার পাইনা।’ বাঁধ ভেঙে ফসলহানির পাশাপাশি বালু জমে আবাদী জমি অনাবাদী হবার আশঙ্কা করছে এলাকার মানুষ।

সারডোব গ্রামের বাসিন্দা এনামুল হক ও ফিরোজ মিয়া জানান, ২০১৭ সালের বন্যায় জমির উপর ব্যাপকহারে বালু পরে জমি অনাবাদী হয়ে যায়। এখনও অনেক জমি থেকে ৪-৫ ফুট বালুতে ঢেকে আছে। নতুন করে এবার প্লাবিত হলেও আবাদযোগ্য জমিই থাকবে কীনা সন্দেহ। হলোখানা গ্রামের কৃষক একরামুল ও আজিজুর রহমান জানান, বন্যার পানিতে ফসল ডুবে যাবার পাশাপাশি পরিবার পরিজন নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে ওঠার মতো উঁচু স্থানও নেই। এবার বাঁধটি ভেঙে গেলে তারা কোথায় যাবেন তা চিন্তিত।

ছাটকালুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক আব্দুল গফুর জানান, গত দু বছরে তারা মানববন্ধন ও সমাবেশসহ অনেক দেন দরবার করলেও বাঁধ ও সড়ক মেরামত না হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছে।

হলোখানা ইউনিয়নের প্রাক্তন মেম্বার আশরাফ আলী জানান, গত বছর ভাঙন প্রতিরোধের জন্য এলাকার শিার্থীসহ সর্বস্তরের মানুষ নদীর পারে মানববন্ধন করে। পানি উন্নয়ন বোর্ড এ সময় বাঁধটি রা করে যোগাযোগ সচল রাখার প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু বারবার তাদের কাছে ধর্ণা দিলেও কোন লাভ হয়নি।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: আরিফুল ইসলাম জানিয়েছেন, সারডোবের বাঁধ মেরামতে অস্থায়ী প্রতিরার কাজ করতে ৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকার বরাদ্দ চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু বরাদ্দ না পাওয়ায় কাজ করা যায়নি। তবে বাঁধটি রায় এক হাজার বালির বস্তা ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।