• আজ ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জানাজায় না গিয়ে ভাতিজিকে ধর্ষণ করে মেরে ফেলল চাচা!

১২:৩৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ৫, ২০১৯ অপরাধ, আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর, নাটোর- নাটোরের সিংড়া উপজেলায় আপন ভাতিজিকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে এক লম্পট চাচা। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী চাচা শাহাদত হোসেনকে (৩৫) আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে।

রোববার (০৪ আগস্ট) দুপুরে সিংড়া উপজেলার ইটালি ইউনিয়নের দেওগাছা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত রেশমী খাতুন (১৮) গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে ও স্থানীয় রহমত ইকবাল অনার্স কলেজের এইচএসসির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন। শাহাদৎ হোসেন রেশমীর আপন ছোট চাচা।

সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রোববার (৪ আগস্ট) সকালে উপজেলার পাকুরিয়া গ্রামে এক আত্মীয় মারা যাওয়ার খবর পেয়ে রেশমীর বাবা-মাসহ পরিবারের সব লোকজন সেখানে যান। আর রেশমী কলেজে ও তার ছোট বোন স্কুলে যায়। বিকেলে কলেজ থেকে বাড়ি ফিরে নিজ ঘরে বিশ্রাম নিচ্ছিল রেশমী। এসময় বাড়িতে একা পেয়ে মাদকাসক্ত চাচা শাহাদৎ হোসেন ঘরে ঢুকে রেশমীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। রেশমী ঘটনাটি বাবা-মাকে জানিয়ে দেবে বললে শাহাদৎ তাকে গলাটিপে শ্বাসরোধে হত্যা করেন।

পরে ঘটনা ধামাচাপা দিতে রেশমীকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের তীরের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখেন শাহাদৎ। একপর্যায়ে নিজেই বিচলিত হয়ে কাঁদতে থাকেন তিনি। এসময় রেশমীর ছোট বোন স্কুল থেকে ফিরে এ অবস্থা দেখতে পেয়ে কান্নাকাটি শুরু করে।

প্রতিবেশীরা টের পেয়ে এগিয়ে আসলে শাহাদৎ পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। লোকজন তাকে ধরে ফেলে গণপিটুনী দিয়ে আটকে রাখেন ও পুলিশে খবর দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, রেশমি খাতুনকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। পরবর্তীতে তদন্ত করে ঘটনার রহস্য বের করা হবে।

Loading...