সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সেতু নয় মরণ ফাঁদ!

◷ ৪:২৯ অপরাহ্ন ৷ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৯ সমস্যা ও সমাধান
kurigram Bridge pic

ফয়সাল শামীম:স্টাফ রিপোর্টার: সেতু নয় এ যেনো এক মরণ ফাঁদ! পুরো সেতুটি জুড়ে ঠিকমতো হাটারও জায়গা নেই।

সেতুর মাঝখান থেকে প্লাষ্টার খুলে রড ভেঙ্গে গেলেও গত ৫ বছর ধরে টনক নড়ছে না কতৃপক্ষের। পুরো ব্রিজটি জুড়ে হাটার মতো ১ হাত জায়গাও নেই।

এছাড়া সেতুটির রেলিং ভেঙ্গে গেছে। আর এই সেতু নিয়ে ভোগান্তিতে দুই ইউনিয়নের প্রায় ৭০ হাজার মানুষের। বলছি কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ^রী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের ঝাকুয়াবাড়ী গ্রামের সেতুর কথা। সেতুটি কাঠের পুল হিসেবে পরিচিত।

এই সেতুটি দিয়ে ভিতরবন্দ ইউনিয়ন ও কালিগঞ্জ ইউনিয়নের মানুষের যাতায়াত। সেতুটিতে ঠিকমতো হাটা না যাওয়ায় প্রায় ৫ কিলোমিটার ঘুরে ওই এলাকার শিক্ষার্থীদের স্কুল কলেজে যেতে হয়। এছাড়া ওই এলাকায় চাষাবাদ করা ধান বা অন্য ফসল নিয়ে আসতে হয় অনেকটা পথ ঘুরে। ফলে গুনতে হয় অতিরিক্ত অর্থ ও পরিশ্রম।

এছাড়া এই ব্রিজটির কারণেই ওই এলাকার মেয়েদের কেউ বিয়ে করতে আসে না বলেও এলাকাবাসী মনে করেন। নিউজ সংগ্রহ করতে গেলে ‘সময়ের কন্ঠস্বরের’ এ প্রতিনিধির কাছে নানান অভিযোগ করেন ওই এলাকার সাধারণ মানুষজন। অভিব্যাক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন অনেকে। তারা এটাও বলেন, এই ব্রিজের জন্য জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে বছরের পর বছর ঘুরলেও কোন কাজ হয়নি।

ঝাকুয়াবাড়ী গ্রামের আব্দুল জলিল বলেন, এই ব্রিজের জন্য এমপি, চেয়ারম্যান,মেম্বার সবার কাছে হাজার হাজার বার গেছি, কিন্তু কোন কাজ হয়নি। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, এই ব্রিজটির কারণেই এই এলাকায় কেউ বিয়ে করতে আসতে চায়না। একই এলাকার শাহালম মিয়া বলেন, এ ব্রিজ থাকা আর না থাকা সমান কথা,কারন এ ব্রিজ দিয়ে তো হাটতেই বুক কাঁপে। ওই এলাকার কৃষক মাহাতাব আলী বলেন, এমনিতেই ধানের দাম নেই। তার উপরে ব্রিজ না থাকায় ৫/৬ কিলোমিটার ঘুরে ধান আনতে হয়।

তাতে করে ধান আনাই লস হয়ে যায়। কালিগঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার খোকা মিয়া বেশ ক্ষোভের সাথে বলেন, সরকার সারা দেশে এতো উন্নয়ন করছে কিন্তু আমাদের এই ব্রিজটি কি সরকারের নজরে পড়েনা?

ভিতরবন্দ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শফিউল আলম শফি বলেন, ব্রিজটির কারনে ভিতরবন্দ ইউনিয়নের ঝাকুয়াবাড়ী গ্রামের মানুষ ও কালিগঞ্জ ইউনিয়নের অনেক মানুষ চরম কষ্টে আছে। তিনি ব্রিজটি নির্মানে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সরকারের কাছে জোড় দাবী জানান।

সেতুটির ব্যাপারে জানতে চাইলে নাগেশ্বরী উপজেলা প্রকৌশলী বাদশা আলমগীর বলেন, এ সেতুটির ব্যাপারে আপাতত আমাদের কোন পরিকল্পনা নেই।