সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গোপালগঞ্জে ঘুর্নিঝড় বুলবুলের আঘাতে ২ কোটি টাকার সবজি নষ্ট

৭:৩৮ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯ ঢাকা

এইচ এম মেহেদী হাসানাত, স্টাফ রিপোর্টার,গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জে ঘুর্নিঝড় বুলবুলের আঘাতে লন্ড ভন্ড হয়ে গেছে শীতের আগাম সবজি ক্ষেত। ঝড়ে এ জেলার অন্তত ৮০ ভাগ সবজি ক্ষেতের মারাত্নক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষেতের ক্ষতিগ্রস্থ সবজি নিয়ে কৃষক বিপাকে পড়েছে। প্রায় ২ কোটি  টাকার সবজি নষ্ট হওয়ায় জেলার হাজার হাজার কৃষকের মাথায় হাত পড়েছে।

 গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, গোপালগেঞ্জ  বর্ষার শেষে  কৃষক অধিক লাভের আশায় ঘেরপাড় ও ক্ষেতের ৬৭৭ হেক্টর জমিতে  লাউ, টমেটো, উচ্ছে, লাল শাক, কুমড়া সহ আগাম শীতের সবজি আবাদ করেন। সবজি ক্ষেতের ৮০ ভাগ সবজি নষ্ট হয়েছে বলে কৃষি দপ্তর জানিয়েছে। এছাড়া ৪২৩ হেক্টর ক্ষেতের ধান, ৩১ একর ক্ষেতের কলা, ১০ হেক্টর জমির পেপে ও ১৭ হেক্টর জমির পান আংশিক ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে  বলে জানিয়েছে ওই দপ্তর।

 গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের কৃষক নারায়ন বিশ্বাস জানান, আবহাওয়া আনুকূলে থাকায় ক্ষেতে এসব সবজির বাম্পার ফলন দেখা দেয়। হেমন্তের শুরুতেই তারা লাউ, উচ্ছে, লাল শাক বিক্রি করে কাচা পয়সা ঘরে তুলতে শুরু করেন। ক্ষেতে পাকতে শুরু করে টমেটো। এরই মধ্যে রোববার দুপুরে  ঝড় বুলবুলের আঘাতে তাদের সবজিতে লাভের স্বপ্ন চুরমার হয়ে গেছে। ঝড়ে মাচা ভেঙ্গে বৃষ্টির পানিতে লাউ, ও কুমড়া গাছ তলিয়ে গেছে। মরে যাচ্ছে ফলন্ত লাউ, কুমড়ার গাছ। ঝড়ে টমেটো ও উচ্ছের গাছ ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। লাল শাক মিশে গেছে মাটির সাথে। টমেটো ও উচ্ছের ক্ষেত টিকিয়ে রাখতে তারা শেষ চেষ্টা করছেন। এরই মধ্যে এসব সবজি ক্ষেতেও মড়ক ধরেছে।  চোখের সামনে ফসল নষ্টের কষ্টে তারা  দুর্বিসহ দিন কাটচ্ছেন ।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলার গুয়াধানা গ্রামের  বিরাট চন্দ্র বিশ্বাস, কনা রায় ও শিশির রায় বলেন, ঝড়ে আমাদের কোমড় ভেঙ্গে গেছে। আমাদের ঘেরপাড়ে প্রচুর টমেটো উৎপাদিত হয়। এ টমেটো  গোপালগঞ্জ, ঢাকা, খুলনা সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যায়। আগাম টমেটোতে আমরা প্রতিবছর প্রচুর টাকা লাভ করি। এ বছর ঝড়ে আমাদের টমেটো সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। টমেটোর ক্ষেত নষ্ট হয়ে আমরা চোখে মুখে অন্ধকার দেখছি।

টুঙ্গিপাড়ার গোপালপুর গ্রামের কৃষক রমেশ হালদার বলেন, ঝড় আমাদের টমেটো, লাউ, কুমড়া, লাল শাক ও উচ্ছে কেড়ে নিয়েছে। এসব হারিয়ে আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি। এখন নতুন করে আবার ক্ষেতে এসব সবজির আবাদ করতে হবে। এ অবস্থা কাটিয়ে উঠতে আমরা সরকারের সহায়তা চাই।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের  উপ-পরিচালক   রমেশ চন্দ্র ব্রহ্ম  ঝড়ে সবজির ব্যাপক ক্ষতির কথা স্বীকার করে বলেন, ক্ষতি পুশিয়ে উঠতে কৃষককে আমরা সব ধরনের সহযোগিতা করব। কৃষকের পাশে থেকে তাদের সবরকম পরামর্শ দিচ্ছি। তারা দ্রুত এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠে ঘুরে দাড়াবে বলে আমার বিশ্বাস।

Loading...