সংবাদ শিরোনাম
শাহজাহান সিরাজের ঐতিহাসিক ভূমিকা জাতি চিরদিন স্মরণ রাখবে: ফখরুল | ফরিদপুরে স্কুলছাত্রীকে ‘ধর্ষণের পর ভিডিও ধারণ’, শিক্ষক গ্রেফতার | নেপালে আংশিক চালু হলো ভারতীয় নিউজ চ্যানেল | ঝালকাঠিতে নিজ ঘর থেকে স্বামীর লাশ উদ্ধার, সন্দেহের তীর স্ত্রীর দিকে | বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুবাদসহ কুরআন শিক্ষার প্রস্তাব পাস করল পাকিস্তান | খাগড়াছড়িতে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত | ‘নির্বাচন সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয়েছে’- ইসি সচিব | দিনাজপুরে করোনায় আরও একজনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ৪১ জন | ঈদের জামাত-কোরবানি নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা | রিজেন্ট গ্রুপের এমডি গ্রেফতার |
  • আজ ৩০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মন্দির ভেবে একবছর ধরে শৌচাগারকেই প্রণাম করেন গ্রামবাসী!

৪:৩৭ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- গেরুয়া রঙের শৌচাগারকে মন্দির ভেবে দীর্ঘদিন ধরে প্রণাম করে আসছিলেন ভারতের উত্তর প্রদেশের একটি গ্রামের বাসিন্দারা। এমনকি মৌদহ নামের ওই গ্রামের বাসিন্দাদের কেউ কেউ নাকি সেই শৌচাগারের সামনে দাঁড়িয়ে প্রার্থনাও করতেন! এমনই আজব খবর জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, উত্তরপ্রদেশের মৌদহ গ্রামে গত একবছর ধরে যা হচ্ছে, তা সত্যিই ভাবনারও অতীত। রাস্তার ধারের একটি ঘর। যার বাইরের দেওয়ালের রং গেরুয়া। দীর্ঘদিন ধরে সেটির দরজায় তালা ঝুলছে।

গ্রামবাসীদের বিশ্বাস, রং যখন গেরুয়া, তখন দেওয়ালের ওপারে নিশ্চয়ই কোনও দেবতার বাস। তাই বন্ধ দরজার দিকে তাকিয়ে হাতজোড় করে প্রণাম করেন তাঁরা। কেউ কেউ দাঁড়িয়ে প্রার্থনাও করেন!

স্থানীয় বাসিন্দা রাকেশ চান্দেলের কথায়, “এলাকার স্বাস্থ্যকেন্দ্রের কাছেই অবস্থিত ওই ঘরটি। দেওয়ালে গেরুয়া রং তো বটেই, ঘরের উপরের অংশটিও দেখতে মন্দিরের মতোই। তাই বাসিন্দারা ধরেই নিয়েছেন, এটি মন্দির। ভিতরে কী আছে, জানার চেষ্টা করিনি আমরা। সম্প্রতি এক অফিসার এসে বলেন, এটি আসলে একটি শৌচাগার।” তিনি এও স্বীকার করে নেন, গেরুয়ার গেরোয় পড়েই যত গন্ডগোল।

বছর খানেক আগে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের অংশ হিসেবে এই গ্রামে তৈরি হয়েছিল শৌচাগারটি। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে সেটি বন্ধ। মৌদহ নগর পঞ্চায়েতের চেয়ারম্যান রাম কিশোর বলেন, “নগর পালিকা পরিষদ এই শৌচাগারটি তৈরি করেছিল। কনট্রাক্টর এটি গেরুয়া রং করে দেয়।” আর সেখান থেকে যত ধন্দের সূত্রপাত।

তবে গ্রামবাসীরা যাতে আর এর দরজার সামনে এসে মাথা নত না করেন, সে কারণে শৌচাগারের রং বদলে গোলাপি করে দেওয়া হয়েছে। যদিও সেটি এখনও তালা বন্ধ। তবে এমন একটি নয়, একটি রিপোর্ট অনুযায়ী যোগীর রাজ্যে সাড়ে তিনশো শৌচাগারের মধ্যে একশোটির রংই গেরুয়া।