সংবাদ শিরোনাম

নিউমাকের্ট থেকে হেফাজতের আরও এক নেতা গ্রেফতারমেলান্দহে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, ড্রেজার মেশিনে আগুন দিয়ে ধ্বংসউৎপাদন বাড়াচ্ছি, শিগগিরই বাংলাদেশ টিকা পাবে: দোরাইস্বামীশরীয়তপু‌রে পা‌রিবা‌রিক দ্ব‌ন্দে স্ত্রীর ওপর অভিমান করে স্বামীর আত্মহত্যামাগুরায় কৃষি পণ্য উৎপাদনে জনপ্রিয় হচ্ছে ‘চাঁদের হাট’ সমন্বিত কৃষি খামার প্রকল্পহেফাজতের যুগ্ম-মহাসচিব খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী গ্রেপ্তারকরোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে সতর্ক করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রীপিরোজপুরে একমাসে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ১৮০০ জনবিমানবন্দরে অস্ত্র-গুলিসহ চিকিৎসক দম্পতি আটকটাঙ্গাইলে গৃহবধূকে রাতভর গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ১

  • আজ বৃহস্পতিবার। গ্রীষ্মকাল, ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। বিকাল ৫:২৭মিঃ

অফিসে বসেই ভূমি কর্মকর্তার ইয়াবা সেবন!

⏱ | শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯ 📁 জাতীয়
yaba

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়ে অফিস চলাকালীন প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক সমীর কুমার চক্রবর্তীর ‘ইয়াবা’ সেবনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওটিতে দেখা যায়, অফিস চলাকালীন সময় চেয়ারে বসে ইয়াবা সেবন করছেন ভূমি কর্মকর্তা সমীর কুমার চক্রবর্তী। আর তার সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন পাশে থাকা অজ্ঞাতপরিচয়ের এক ব্যক্তি।

তবে ইয়াবা সেবনের বিষয়ে জানতে চাইলে সমীর কুমার চক্রবর্তী বলেন, এ বিষয়ে আমার কোনো কথা নেই। আমি কিছু দেখতেও চাই না।

দীর্ঘদিন ধরে তার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ ছিল। ওই ভিডিওটির মাধ্যমে তার সত্যতা প্রমাণিত হয়।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়ের অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমি ভিডিওটা দেখিনি। যদি কেউ সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে অভিযোগ করে থাকে তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

জানা যায়, বুধবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগে ওই ভূমি কার্যালয়ে অভিযান চালায় ময়মনসিংহ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) উপ-সহকারী পরিচালক সাধন চন্দ্র সূত্রধরের দল। এ সময় খোদ ভূমি অফিসেরই একাধিক কর্মচারী সমীর কুমার চক্রবর্তীর ইয়াবা সেবনসহ নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ধরেন দুদক কর্মকর্তাদের কাছে।

সংশ্লিষ্ট দুদক কর্মকর্তারা জানান, ২০১০ সালের ১২০৭নং মোকাদ্দমার ডিসিআর কাটতে টাকা দাবির অভিযোগে ফুলপুর উপজেলা ভূমি কার্যালয়ে অভিযান চালালে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ মিলে। অফিসের কার্যক্রমের খাতাপত্রে সঠিক কোনো রেকর্ড নেই। অনেক কাজের অনুমোদন থাকলেও কর্মকর্তার স্বাক্ষর নেই বা সিল নেই। অফিসের রেজিস্ট্রারে এর প্রমাণ রয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, তিনি ভিডিওটি হাতে পেয়েছেন। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।