সংবাদ শিরোনাম

ছাত্রলীগ নেতার প্যান্ট চুরির ভিডিও ভাইরাল!পাটগ্রামে ইউএনও’র উপর হামলা, আটক ৬আগের সব রেকর্ড ভেঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ৮৩ জনেরশফী হত্যা মামলা: মামুনুল-বাবুনগরীসহ ৪৩ জনকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদনখালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় সারাদেশে দোয়া কর্মসূচিরোহিঙ্গা শিবিরে ফের অগ্নিকান্ডসালথায় তান্ডব: এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগের সত্যতা মিলেনিশাহজাদপুরে কৃষকদের মাঝে হারভেস্টার মেশিন বিতরণচাঁদপুরে গণমাধ্যম সপ্তাহের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপিশ্রমিকদের যাতায়াতের ব্যবস্থা না করলে আইনি পদক্ষেপ : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

  • আজ ৩০শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘ভারত কখনোই কাশ্মীরকে বাদ দেবে না’- মার্কিন কংগ্রেসে সুনন্দা

১২:৩৩ পূর্বাহ্ন | শনিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৯ আন্তর্জাতিক
varot

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মার্কিন কংগ্রেসে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর প্রসঙ্গে লেখিকা সুনন্দা বশিষ্ঠ জানিয়েছেন, পাঞ্জাব এবং উত্তর-পূর্বে বেড়ে ওঠা জঙ্গি গতিবিধি এরই মধ্যে অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছে ভারত। এবার নজর দিতে হবে কাশ্মীরের দিকে। জঙ্গি উপদ্রব পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে সেখানকার সাধারণ মানুষের মানবাধিকার ফিরবে।

এর আগেও মার্কিন কংগ্রেসের মানবাধিকার বিষয়ক শুনানিতে কাশ্মীরের প্রসঙ্গ উঠেছিল। দ্বিতীয় শুনানিতে সুনন্দা বশিষ্ঠ বললেন, ভারত একটি অনন্য গণতান্ত্রিক দেশ। জঙ্গি সমস্যা সমাধান করতে পারলেই কাশ্মীরের মানুষের জীবন পুরোপুরি স্বাভাবিক হয়ে যাবে। পাকিস্তান থেকে প্রশিক্ষণ পাওয়া জঙ্গিদের নৃশংসতা অকল্পনীয়। ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের সমকক্ষ হয়ে উঠেছে তারা। কিন্তু কাশ্মীরে যতই হামলার চেষ্টা করুক, ভারত কখনোই কাশ্মীরকে বাদ দেবে না।

৯০ এর দশকে উপত্যকা থেকে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের বিতাড়নের কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, এই বিষয়ে যে আজ এখানে কথা হচ্ছে, এতে আমি খুব খুশি। কারণ এক সময় আমি, আমার পরিবারের মতো অনেককে ঘর হারাতে হয়েছিল। কিন্তু সারা পৃথিবী সেদিন চুপ করে ছিল। তখন মানবাধিকারের ধ্বজাধারীরা কোথায় ছিলেন? তখন কেন মানবিকতা বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি কেউ!

বশিষ্ঠের বক্তব্যের পর মার্কিন কংগ্রেসের এক সদস্য, টেক্সাসের শাইলা জ্যাকসন লি প্রশ্ন তোলেন, এখন জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষের মানবাধিকার ফেরাতে কী করা হবে? তিনি জানতে চান, মার্কিন কংগ্রেসের পক্ষ থেকে উপত্যকায় ঘুরে দেখা সম্ভব কি না।

চলতি বছরের আগস্ট মাসে উপত্যকা থেকে ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার পর থেকেই অবরুদ্ধ জম্মু-কাশ্মীর। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে টেলিফোন পরিষেবা। ল্যান্ডলাইন সাময়িকভাবে চালু হলেও মোবাইল পরিষেবা এখনো পুরোপুরি চালু হয়নি উপত্যকায়। নেই ইন্টারনেট সংযোগ। আর সেখানে মোতায়েন রয়েছে বিপুল সংখ্যক বাহিনী।

৩১ অক্টোবরের পর থেকে ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে যাত্রা শুরু করেছে জম্মু-কাশ্মীর। কিন্তু সেখানকার মানুষের মৌলিক অধিকার এখনো ফেরেনি। এই পরিস্থিতির অবসান ঘটানোরই দাবি উঠেছে মার্কিন কংগ্রেসে।‌