কালকিনিতে আড়িয়ালখাঁ নদীর বুকে জমজমাট ভেলা বাইচ


❏ শনিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৯ ঢাকা, দেশের খবর

এইচ এম মিলন, কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি- আবহমান গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী ভেলা বাইচ উপভোগ করেছেন মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বিনোদন পিপাসু হাজারো বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষ।

উপজেলার পুর্বএনায়েতনগর এলাকার স্থানীয় কৃষকদের উদ্যোগে শুক্রবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আড়িয়াল খাঁ নদীর বুকে কলাগাছের তৈরী এ ভেলা বাইচ অনুষ্ঠিত হয়। ঢাক ঢোলের তালেতালে গ্রামবাংলার গান আর বৈঠার ছন্দ মাতিয়ে তাল মিলিয়ে তীরে হাজার-হাজার শিশু-কিশোর-কিশোরী থেকে শুরু করে বায়োবৃদ্ধ পর্যন্ত নেচে গেয়ে এ ভেলা বাইচ উপভোগ করেছেন।

এ বাইচ শুরুর আগে বিকেল থেকে নদীর দুই পাড়ে বিভিন্ন শ্রেনীর পেশার মানুষে ভরে যায়। শুধু কালকিনি নয় আশপাশের কয়েকটি জেলা, উপজেলা থেকে হাজার-হাজার বিনোদন প্রেমীরা এ ভেলা বাইচ দেখতে এসেছিল।

এ ভেলা বাইচকে কেন্দ্র করে তীরবর্তী এলাকায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা নানা পসরা সাজিয়ে বসেছিল। প্রতিযোগীতায় ২টি গ্রুপে ১০টি ভেলা অংশগ্রহন করেন। প্রতিযোগীতা শেষে শুক্রবার রাতে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার হিসেবে টিভি ও চ্যাম্পিয়ান কাপ তুলে দেয়া হয়।

এতে বিজয়ী হয় আক্তার হোসেনের ভেলা ও রানার আপ হয় শহিদুল ইসলামের ভেলা। এতে পূর্বএনায়েতনগর ইউপি চেয়ারম্যান রেহেনা নেয়ামুল আকনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাংবাদিক মোঃ শহিদুল ইসলাম।

ভেলা বাইচ দেখতে আসা নাজমুল জানান, কালকিনিতে ভেলা বাইচ দীর্ঘদিন পর অনুষ্ঠিত হল। তাই আনন্দ উপভোগ করার জন্য এ ভেলা বাইচ দেখতে আমরা এসেছি।
শিশু ফয়সাল জানান, মায়ের সঙ্গে ভেলা বাইচ দেখতে এসেছি। খুব মজা পেলাম। প্রতিবছর আড়িয়া খাতে এ ভেলা বাইচ প্রতিযোগীতার দাবি জানাই।

পূর্বএনায়েতনগর ইউপি চেয়ারম্যান রেহেনা নেয়ামুল আকন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই এলাকায় কোন বাইচ হয়নি। মাদারীপুর তথা কালকিনিবাসী আনন্দবঞ্চিত ছিল। মানুষকে নির্মল আনন্দ-বিনোদনের পাশাপাশি দেশীয় ঐতিহ্য রক্ষার জন্য এ ভেলা বাইচের আয়োজন করা হয়েছে। সব বয়েসের মানুষ বিপুল আনন্দ উপভোগ করতে পারায় নিজেদের অনেক ভাগ্যবান মনে হচ্ছে। মুলত কৃষকদের মাঝে উৎস যোগাতে এ ভেলা বাইচয়ের ব্যবস্থা করা হয়। সাধারনত এখন ভেলা বাইচ কম হয়।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন