সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শাহজাদপুরে বন্ড সুবিধার কোটি টাকার সূতার চোরাই ব্যবসা

৭:২৬ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, নভেম্বর ২২, ২০১৯ রাজশাহী
Sirajgonj

রাজিব আহমেদ, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার খুকনী বাজারে গার্মেন্টস শিল্পের জন্য বন্ড সুবিধায় বিদেশ থেকে আনা কোটি কোটি টাকার শত শত টন সূতা বিক্রি হচ্ছে একেবারে খোলামেলা ভাবে। যেনো দেখার কেউ নেই, অনেকে বলছে প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই করা হচ্ছে এই ব্যবসা।

এদেশের রপ্তানিমুখী গার্মেন্ট শিল্প প্রতিষ্ঠান কর্তৃক বন্ড সুবিধায় শুল্কমুক্ত ভাবে সূতা আমদানির সুবিধা দিয়েছে সরকার। যেনো পোশাক শিল্পের উৎপাদন খরচ কমে আসে। তবে একটি অসাধু মহল বিদেশ থেকে আনা বন্ড সুবিধার এসব সুতার বড় একটি অংশ কালোবাজারির মাধ্যমে সিরাজগঞ্জের তাঁত শিল্প সমৃদ্ধ শাহজাদপুর, এনায়েতপুর, খুকনী ও বেলকুচির বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করে দিচ্ছে।

সরেজমিনে শাহজাদপুর উপজেলার খুকনী বাজারের বিভিন্ন সুতার দোকানে ঘুরে দেখা যায় ৮ থেকে ১০টি দোকানে অবৈধভাবে সুতা বিক্রি হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায় এই বাজারে বিদেশী চোরাই সুতার নিয়ন্ত্রন করে মৃত ধর্ম পালের সন্তান শ্রী নরেশ চন্দ্র পাল ও রাম চন্দ্র পালের ” পাল এন্ড সন্স” নামের দোকান।

শুধু তাই নয়, তাদের গোপন দুইটি গোডাউন থেকে বাজারের প্রায় ১০টি দোকানে পাইকরি সাপ্লাই দেওয়া হচ্ছে কোটি কোটি টাকার ইন্ডিয়ান চোরাই সূতা। একই বাজারের মণ্ডল পাড়া আইডিয়াল মডেল স্কুলের পাশে হাজী মোঃ আনিসের গোডাউনে দেখা যায় প্রায় কোটি টাকা মূল্যের শতাধিক কার্টুন ইন্ডিয়ান চোড়াই সূতা।

দোকানের কর্মচারীকে জিজ্ঞাস করলে তিনি জানান, “স্বর্গীয় ধর্ম পালের দোকান থেকে কিনে এনে আমরা বিক্রি করি। ” চোরাই পথে আসা সূতোর অবৈধ ব্যবসা কেনো করেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, অতিরিক্ত মুনাফা এবং ব্যাপক চাহিদা থাকায় এ ব্যাবসা করি আমরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার একাধিক ব্যাক্তি জানান, স্থানীয় প্রশাসনকে মোটা অংকের মাসোহারা দিয়ে এই অসাধু চক্র দীর্ঘদিন ধরে এ ব্যবসা করে আসছে।

এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মোঃ শামসুজ্জোহার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ” আমি ঢাকায় আছি, সহকারি কমিশনারের ( ভূমি) সাথে যোগাযোগ করেন।

বিষয়টি নিয়ে তাৎক্ষণিক সহকারি কমিশনার ( ভূমি) মোছাঃ জাকিয়া সুলতানার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Loading...