• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সকাল ৮:১৩মিঃ

তীব্র শীতে কাঁপছে পঞ্চগড়, ১৩ ডিগ্রিতে নেমেছে তাপমাত্রা

১২:৪৩ অপরাহ্ন | শুক্রবার, নভেম্বর ২২, ২০১৯ রংপুর
panc

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ গত কয়েকদিন ধরে দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে বেড়ে চলেছে শৈত্যপ্রবাহের মাত্রা। সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শীত। দিনের বেলা আবহাওয়া গরম থাকলেও বিকেলের পর থেকে সকাল পর্যন্ত থাকছে শীত ও কুয়াশা।

আবহাওয়া অফিস বলছে, সারাদেশের মধ্যে শুক্রবার (২২ নভেম্বর) সকালে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ১৩ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

শুক্রবার ভোরের দিকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কুয়াশা পড়তে দেখা যায়। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকবে। এছাড়া অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে।

কয়েক দিন ধরে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় তাপমাত্রা কমে গিয়ে প্রচণ্ড শীত অনুভূত হচ্ছে। যেখানে গত কয়েকদিন তাপমাত্রা ১৫ থেকে ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠানামা করছিল।

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষক মো. রহিদুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার সকাল নয়টায় তেঁতুলিয়ার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৩ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাতভর শীতের প্রকোপে ও পাহাড়ের হিমেল বাতাস থাকায় তাপমাত্রা অনেকটা কমেছে বলে তিনি জানান।

শুক্রবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল টেকনাফে ৩১ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ১৩ দশমকি ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। টানা ২২ দিন ধরে দেশে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বিরাজ করছে তেঁতুলিয়া।

সাধারণত এ জেলার একদম কাছে হিমালয় পর্বত শৃঙ্গ হওয়ায় প্রতিবারেই একটু আগেই শীত অনুভব হয়। আর শীতে উষ্ণতা পেতে ইতোমধ্যে স্থানীয়রা ব্যবহার শুরু করেছেন গরম কাপড়।

স্থানীয়দের ধারণা, এবারো শীতের প্রকোপ দ্বিগুণ বাড়বে। আর এই শীত থেকে নিম্ন আয়ের দরিদ্র মানুষদের রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থা ও বিত্তবানদের প্রস্তুত থাকার জন্য জানিয়েছেন সুশীল সমাজ।