• আজ বুধবার। গ্রীষ্মকাল, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১০:১৫মিঃ

শেখ হাসিনাকে ‘সুইং’ বোঝালেন শচীন

৩:৩১ অপরাহ্ন | শনিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৯ খেলা
hasina

স্পোর্টস আপডেট ডেস্কঃ ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীর আমন্ত্রণে কলকাতায় বাংলাদেশ-ভারত দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচ দেখতে সকালে কলকাতায় পৌঁছান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টেস্ট ভেন্যু ইডেনে শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সৌরভ গাঙ্গুলী।

ভারতের ক্রিকেট কিংবদন্তী শচীন টেন্ডুলকারও ছিলেন ঐতিহাসিক এই আয়োজনে। ক্লাব হাউসের সিঁড়ি দিয়ে তিনতলায় উঠতে উঠতে খেলার এক ফাঁকে দেশটির এক সাংবাদিকের সঙ্গে কথা হয় শচীন টেন্ডুলকারের দুপুরে হাত নেড়ে নেড়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কী বোঝান তিনি জানতে চাইলে জবাবে হেসে ফেলেন ভারতীয় ব্যাটিং কিংবদন্তী।

শচীন বলেন, উনি (বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী) গোলাপি বলের বিশেষত্ব জানতে চান। সেটাই বোঝানোর চেষ্টা করি। বলি, এতে সুইং বেশি করে। কেন করে, কী কারণে করে বলার প্রয়াস চালিয়েছি। সর্বোপরি, উনাকে সুইংটাই ভালোভাবে বোঝানোর চেষ্টা করেছি।

গোলাপি বলের টেস্টের পক্ষে বাজি ধরে শচীন বলেন, কে কী বলছে জানি না। আমার মতে, গোলাপি বলই টেস্টের ভবিষ্যৎ। এত মানুষ এসেছে দিবারাত্রির টেস্ট দেখতেই। খেলা দেখতে ইডেনে অবশ্য সবসময় দর্শক আসে। তবে টেস্টের ভবিষ্যৎ গোলাপি বলেই। যেকোনো ক্ষেত্রে ভালো করতে হলে নতুন কিছু নিয়ে ভাবতে হবে। অন্যথায় সেটা চলবে না। টেস্টের নতুনত্ব গোলাপি বল।

স্পষ্ট ভাষায় শচীন বুঝিয়ে দিলেন যে, গোলাপি বল নিয়ে বিরাট কোহলির চিন্তা ভুল। ভারতীয় অধিনায়ক কোহলি মনে করেন গোলাপি বল টেস্টের ভবিষ্যত নয়।

গোলাপি বলে সাদা সাইট স্ক্রিনের পরিবর্তে কালো স্ক্রিন ব্যবহার করা উচিত? উত্তরে শচীন বলেন,আমার পক্ষে এটা বলা মুশকিল। আমি কখনো গোলাপি বলে খেলিনি। কথা বলতে বলতেই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতির বক্সে ঢুকে পড়েন সেঞ্চুরির সেঞ্চুরিয়ান। সেখানে আগে থেকেই ছিলেন কিংবদন্তি মেরি কম, পি ভি সিন্ধু, সানিয়া মির্জা, অনিল কুম্বলেরা।