• আজ বুধবার, ১১ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৭ অক্টোবর, ২০২১ ৷

রংপুরে ৪৫ টাকায় টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি শুরু, ক্রেতাদের দীর্ঘ লাইন


❏ রবিবার, নভেম্বর ২৪, ২০১৯ দেশের খবর, রংপুর

সাইফুল ইসলাম মুকুল, রংপুর প্রতিনিধি- দেশের বিভিন্ন স্থানের মতো রংপুরেও ৪৫ টাকায় কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)।

আজ রোববার সকাল থেকে রংপুর মহানগরীর পাঁচটি পয়েন্টে খোলা ট্রাকে করে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়। প্রথম দিনেই ৪৫ টাকায় পেঁয়াজ কিনতে লম্বা সারিতে হিশমিশ খেতে হয়েছে ক্রেতাদের। তবে একেকজন ক্রেতা এক কেজির বেশি পেঁয়াজ কিনতে পারেনি।

নগরীর প্রেসক্লাব চত্বরে পেঁয়াজ কিনতে আসা রিকশাচালক আজমল বলেন, খুচরা ও পাইকারী বাজারে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বেশি। এ কারণে টিসিবির ৪৫ টাকা মূল্যের পেঁয়াজ কিনতে এসেছি। তবে এই দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ কেনাটা কষ্টকর। তার মধ্যে টিসিবি শুধু মাত্র পাঁচটি নির্ধারিত স্থানে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। নিয়ম করে সবখানে বিক্রির ব্যবস্থা করা হলে অনেকেই উপকৃত হবেন।

অন্যদিকে শাপলা চত্বর এলাকায় পেঁয়াজ কেনার সময় বুলবুলি বেগম নামে এক গৃহিণী বলেন, অনেক কষ্ট করে এক কেজি পেঁয়াজ কিনতে পেরেছি। এটা সরকারের ভালো উদ্যোগ। ব্যবসায়ীরা তো সাধারণ মানুষকে জিম্মি করেছে। তা না হলেও হঠাৎ হুহু করে পেঁয়াজের দাম বাড়বে কেন?

জানা গেছে, রংপুর টিসিবি অফিস পেঁয়াজ বিক্রি মনিটরিং করছে। এছাড়াও ক্রেতাদের সুবিধার্থে জনসমাগত স্থলে খোলা ট্রাক রেখে পেঁয়াজ বিক্রি তদারকি করছে।
এ ব্যাপারে টিসিবির মুখপাত্র হুমাযুন কবীর বলেন, সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় টিসিবির মাধ্যমে রাজধানীসহ সারা দেশের বিভাগ ও জেলা পর্যায়ে ৪৫ টাকা মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি জোরদার করেছে।

রংপুর নগরীর গুরুত্বপূর্ন শাপলা চত্বর, প্রেসক্লাব চত্বর, সিটি বাজার, ডিসির মোড় ও সিওবাজারে ট্রাক সেলের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করা হয়েছে। এছাড়াও নগরীর অন্যান্য মোড়েও পর্যায়ক্রমে ট্রাকের করে পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে। সপ্তাহের প্রতি রোববার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি কার্যক্রম চলবে। ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি না হওয়া পর্যন্ত ক্রেতারা পেঁয়াজ কেনার সুযোগ পাবেন।

রংপুর টিসিবির কর্মকর্তা সুজাউদ্দৌলা জানান, সরকারের বিশেষ উদ্যোগে ইতোমধ্যে আকাশ ও সমুদ্র পথে পেঁয়াজের চালানগুলো দেশে পৌঁছতে শুরু করেছে। বিভিন্ন এয়ারলাইন্সযোগে মিশর, তুরস্ক, পাকিস্থান থেকে এ সকল পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে।

সরকার পেঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে এবং ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে টিসিবির মাধ্যমে বিক্রয়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। এখন বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণ দেশী পেঁয়াজ (পাতাসহ) এসেছে। কিছুদিনের মধ্যে খুচরা ও পাইকারী বাজারে পেঁয়াজের দাম আরো কমে আসবে।