• আজ বুধবার, ১১ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২৭ অক্টোবর, ২০২১ ৷

পদ্মাসেতুতে এগিয়ে চলেছে রোডওয়ে-রেলওয়ের কাজ, ৪২ খুঁটির মধ্যে ৩৩টিই নির্মাণ সম্পন্ন


❏ সোমবার, নভেম্বর ২৫, ২০১৯ ফিচার

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহমিদ, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি- দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে পদ্মা সেতু প্রকল্পের মূল কাজ। সেতুর ১৬ ও ১৭ নম্বর পিলারের ওপর ১৬তম স্প্যান। বসার পরে কাজের গতি বেড়েছে এখন। ১৬তম স্প্যান বসার মধ্যে দিয়ে দৃশ্যমান হয়েছে প্রায় আড়াই কিলোমিটার।

পদ্মার জাজিরা পয়েন্টে ৪১ ও ৪২ নম্বর পিলারে আগেই বসেছে স্প্যান। এখন এ স্প্যানের ওপর বসেছে ৮৭টি রোডওয়ে স্ল্যাব। সবমিলিয়ে এখন ১৫০ মিটার রোডওয়ে দৃশ্যমান পদ্মার বুকে। পরবর্তীতে এ রোডওয়ের ওপর ২শ’ মিলিমিটার (৮ ইঞ্চি) পুরু বিটুমিনাস ঢালাই দেওয়া হবে। তার ওপর দিয়েই চলবে যানবাহনগুলো।

১৫০ মিটার রোডওয়ের পাশাপাশি রেলওয়ে স্ল্যাবের কাজও দৃশ্যমান এখন। এরই মাঝে রোডওয়ে স্ল্যাবের চেয়ে রেলওয়ে স্ল্যাবের কাজ বেশি এগিয়েছে। ৩৭ নম্বর পিলার থেকে ৪২ নম্বর পিলার পর্যন্ত ৩৮৬টি রেলওয়ে স্ল্যাবের কাজ সম্পন্ন হয়েছে এর দৈর্ঘ্য ৭৫০ মিটার।

রবিবার (২৪ নভেম্বর) প্রকল্প এলাকা ঘুরে এ রকম দৃশ্য দেখা যায়।

অন্যদিকে রেলওয়ের জন্য প্রয়োজন মোট ২ হাজার ৯৫৯ টি স্ল্যাব। ইতোমধ্যেই যার ২ হাজার ৯৪৬টি তৈরি হয়ে গেছে। বাদবাকি ১৩টি স্ল্যাবের কাজ চলমান। পদ্মা নদীর মধ্যে শুধু স্প্যানের ওপর রোডওয়ে ও রেলওয়ে স্ল্যাব বসছে। শুকনো জায়গায় বসছে টি-গার্ডার ও আই-গার্ডার। টি-গার্ডারের ওপর দিয়ে চলবে যানবাহন আর আই-গার্ডার দিয়ে চলবে রেলগাড়ি। এ বাবদ মোট ৪৩৮টি টি-গার্ডার প্রয়োজন। এর মধ্যে তৈরি হয়েছে ৪৫টি। এছাড়া ৭১টি টি-গার্ডার ইতোমধ্যেই বসে গেছে পিলারের ওপরে।

অন্যদিকে আই-গার্ডার প্রয়োজন ৮৪টি। এর মধ্যে ৪২টির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া ৬০টি আই-গার্ডার ইতোমধ্যেই বসে গেছে। প্রকল্প এলাকায় সমান তালে চলছে পিলার, স্প্যান, রেলওয়ে, রোডওয়ে, টি-গার্ডার ও আই-গার্ডারের কাজ।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প সম্পন্ন হবে ২০২১ সালের জুন মাসে। সর্বশেষ পদ্মাসেতু প্রকল্পের মূল ব্যয় ছিল ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। প্রকল্পের শুরু থেকে এ পর্যন্ত ব্যয়ের পরিমাণ ১৯ হাজার ৯৪৭ কোটি ৪১ লাখ টাকা। এখন পর্যন্ত মূল সেতুর ৮৫ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। জুন ২০২১ সালে প্রকল্পটি উন্মুক্ত করার লক্ষ্যে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে কাজ।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের সহকারী প্রকৌশলী মোঃ হুমায়ুন কবির ও প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীদের তথ্যমতে জানা গেছে, সব চ্যালেঞ্জ জয় করে এগিয়ে যাচ্ছে মূল সেতুর কাজ। সেতু উদ্বোধন এখন শুধু সময়ের ব্যপার। সেতুর সব কাজ চলছে সমানতালে। পিলারের পাশাপাশি, স্প্যান, রোডওয়ে ও রেলওয়ের কাজ এগিয়ে চলেছে।

এদিকে মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ১৭ তম স্প্যান বসছে আগামী ২৫ বা ২৬ নভেম্বর। পদ্মা মূল সেতুর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানী সেতু কর্তৃপক্ষকে এভাবেই প্রোগ্রাম দিয়েছে।

সেতু কর্তৃপক্ষের দায়িত্বশীল এক প্রকৌশরী এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ২২ ও ২৩ নম্বর খুঁটিতে (পিলার) বসবে এই স্প্যান। এর পরই ৪ বা ৫ ডিসেম্বর বসার কথা রয়েছে ১৮নং স্প্যান ১৭ ও ১৮ নং খুঁটিতে। পরবর্তীতে ডিসেম্বরই ২১ ও ২২ নম্বর খুঁটিতে স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া ৩১-৩২ নম্বর খুঁটিতেও স্প্যান বসবে অল্প সময়ের মধ্যেই।

মাওয়া এলাকার পদ্মার অল্প কাছে কুমার ভোগ ইয়ার্ডে স্প্যান ও খুঁটি কাজ তৈরী হয়ে যাওয়ায়। এবার খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে স্প্যান গুলো পিলারে উঠতে থাকবে।

এদিকে চীন থেকে আরোও দুটি স্প্যান সমুদ্রপথে ১৯ নভেম্বর মোংলা পোর্টে এসে পৌঁছেছে। ৩/৪দিন পরেই মাওয়া এসে পৌঁছাবার কথা রয়েছে। সেতুর ৪২টি খুঁটির মধ্যে ৩৩টি খুঁটিই নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া ৭ নম্বর আলোচিত খুঁটির কাজ চলছে। তার পাশে বাকি ৮, ১০, ১২. ২৬, ২৭, ও ২৯, নম্বর খুঁটির কাজ আগামী মার্চ মাসের মধ্যে শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।