• আজ বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৮ ৷ ২১ অক্টোবর, ২০২১ ৷

ফাঁসির রায় শুনেও হাসিমুখে বের হলেন আসামিরা


❏ বুধবার, নভেম্বর ২৭, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিসান বেকারিতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা মামলার রায়ে ফাঁসির আদেশ দেওয়ার পরও আদালত থেকে হাসিমুখে বের হয়েছেন দণ্ডপ্রাপ্তরা।

রায়ে আটজন আসামির মধ্যে সাতজনের ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান নামে এক আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে.

ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান বুধবার জনাকীর্ণ আদালতে আলোচিত এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।

মামলার রায়ের পর পুলিশ হেফাজতে আদালত থেকে বের করা হয় আসামিদের। এ সময় তাদেরকে হাসিমুখে দেখা যায়। কেউ কেউ আবার আঙুল উঁচিয়ে ধরেন। তাদের খুবই আত্মবিশ্বাসী দেখা গেছে।

আদালতে রায় শোনার পরও তাদের কারও চেহারাতেই অনুশোচনার কোনো চিহ্ন দেখা যায়নি। তারা উচ্চস্বরে বলতে থাকেন, ‘আল্লাহু আকবর, আমরা কোনো অন্যায় করিনি।’।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন— অস্ত্র ও বিস্ফোরক সরবরাহকারী নব্য জেএমবি নেতা হাদিসুর রহমান সাগর, বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত কানাডার নাগরিক তামিম চৌধুরীর সহযোগী আসলাম হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে র‌্যাশ, জঙ্গি রাকিবুল হাসান রিগ্যান, জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব ওরফে রাজীব গান্ধী, হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী আব্দুস সবুর খান (হাসান) ওরফে সোহেল মাহফুজ, মামুনুর রশিদ ও শরিফুল ইসলাম। সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯-এর ৬(২) (অ) ধারায় অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় তাদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।

বিচারক রায় ঘোষণার সময় বলেন, আইএসের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য এই হামলা চালানো হয়েছিল। এই হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন তামিম। এই রায়ে ন্যায় বিচারের সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হয়েছে।

তিন বছরের বেশি সময় ধরে ৫২ কার্য দিবসে মামলার কার্যক্রম পরিচালনা, রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক, পক্ষ-বিপক্ষের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে গত ১৭ নভেম্বর আদালত জানান, ২৭ নভেম্বর রায় ঘোষণা করা হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন