• আজ শুক্রবার। গ্রীষ্মকাল, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। ভোর ৫:১৭মিঃ

এজলাসে আসামির মাথায় আইএসের টুপি! কিভাবে এলো?

⏱ | বুধবার, নভেম্বর ২৭, ২০১৯ 📁 আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- বহুল আলোচিত রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলা মামলায় আট আসামির মধ্যে সাতজনের মৃত্যদণ্ড ও একজনের খালাস দিয়েছেন আদালত।

বুধবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন।

তবে, রায় ঘোষণা সময় এবং আদালত থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৭ আসামির একজন রাকিবুল হাসান রিগানের মাথায় জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর একটি লোগো সম্বলিত একটি টুপি দেখা গেছে।

যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ইতোমধ্যে সমালোচনা শুরু হয়ে গেছে। যেখানে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে, কিভাবে কারাবেষ্টনীর মধ্যে তার মাথায় এই টুপিটা এলো?

জানতে চাইলে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌসুলি আবদুল্লাহ আবুও উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, কোথায় পেলেন আসামি এই টুপি!

আদালত চত্ত্বরে আইএসের পতাকা সরবরাহ করায় রাষ্ট্রপক্ষের অন্য আইনজীবীরাও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী আব্দুল্লাহ আবু প্রশ্ন করে বলেছেন, এই ঘটনা অভাবনীয়। আসামীরা আইএসের টুপি কোথায় পেল? আদালত চত্ত্বরে কারা তাদেরকে আইএসের পতাকা সরবরাহ করেছে?

টুপি কোথায় পেয়েছে রিগান তা জানেন না পুলিশেরও কেউ। টুপি পড়ার বিষয়টি উর্ধবতনদের জানানো হয়েছে বলে বলেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গোয়েন্দা পুলিশের একজন সদস্য।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১ জুলাই নৃংশসতম ওই জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। দে‌শের ই‌তিহা‌সে অন্যতম নৃশংস এ হামলায় ৯ জন ইতালীয়, ৭ জন জাপানি, একজন ভারতীয়, একজন বাংলাদেশি-আমেরিকান দ্বৈত নাগরিক ও দু’জন বাংলাদেশিসহ মোট ২০ জনকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় সন্ত্রাসীদের ছোড়া গ্রেনেডের আঘাতে প্রাণ হারান বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দিন আহমেদ ও সহকারী পুলিশ কমিশনার রবিউল ইসলাম।

হামলার পর জিম্মি অবস্থার অবসানে সেনাবাহিনীর কমান্ডো অভিযানে নিহত হয়েছিলেন পাঁচ জঙ্গি। তারা হলেন- মীর সামেহ মোবাশ্বের, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ ওরফে মামুন, নিবরাস ইসলাম, খায়রুল ইসলাম পায়েল ও শফিকুল ইসলাম উজ্জল।

এছাড়া বিভিন্ন সময়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানের সময় নিহত হয়েছেন নব্য জেএমবির আরও ৮ সদস্য। তাদের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আবুল হাসনাত রেজা করিমও অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পান।