• আজ শুক্রবার। গ্রীষ্মকাল, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। দুপুর ১:৪৬মিঃ

চবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ৫

⏱ | শনিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৯ 📁 শিক্ষাঙ্গন
cu

মেহেদী হাসান, চবি প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সোহরাওয়ার্দী মোড়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে ৫ জন ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছে। গুরুতর আহত হয়েছে একজন। তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। বাকিদের বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টার থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয় বলে জানা যায়।

আহতরা হলেন, গনিত বিভাগের ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী সুইডেন, ইসলাম শিক্ষা বিভাগের ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী শেখ জাহিদ, ইতিহাস বিভাগের ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ইকরামুল হক রিয়াদ, গনিত বিভাগের ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী তানজিম সাদমান ও রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের ১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মো. রিয়াদ।

বিবাদমান গ্রুপ দুইটি হলো বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সিএফসি ও ভিএক্স গ্রুপ। সিএফসি গ্রুপ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এর অনুসারী ও ভিএক্স গ্রুপ সিটি মেয়ের আ জ ম নাসির এর অনুসারী।

সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার ভিএক্স এর এক জুনিয়র কর্মীকে থাপ্পড় মারে সিএফসি গ্রুপের এক কর্মী। এই ঘটনার রেষ ধরে শুক্রবার রাতে পুনরায় ভিএক্স এর কয়েকজন কর্মীকে মারধর করে সিএফসি গ্রুপের নেতাকর্মীরা। এই ঘটনা ভিএক্স গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে বিশ্ববিদ্যালয়ের সোহরাওয়ার্দী হলের সামনে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে সিএফসি গ্রুপ আমানত হলে ও ভিএক্স গ্রুপ সোহরাওয়ার্দী হলে অবস্থান নেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মনিরুল হাসান বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলা যাবে না। এখন নিয়ন্ত্রণে দেখছি। কিন্তু এটি নির্ভর করছে পরবর্তী পদক্ষেপের ওপরে। পুরো বিষয়টি সুরাহা করার চেষ্টায় আছি।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সিএফসি গ্রুপের নেতা রেজাউল হক রুবেল বলেন, রাতে তাপস স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের খেলা চলছিল। ওই সময় একটি চক্র খেলা বানচাল করার চেষ্টা করছে। আমরা এই বিষয়টা সকালে বসে সমাধান করব।

ভিএক্স গ্রুপের নেতা প্রদীপ চক্রবর্তী দুর্জয় বলেন, আমরা এ এফ রহমান হলে একটি মিটিং করছিলাম। মিটিং চলাকালীন জানতে পারি শহীদ আব্দুর রব হলে সিএফসি গ্রুপের কর্মীরা আমাদের কয়েকজন জুনিয়র কর্মীকে মারধর করেছে। এটা খুবই দুঃখজনক।