• আজ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাসচাপায় রাজীব-দিয়া নিহতের মামলার রায় রোববার

৯:৫২ অপরাহ্ন | শনিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ
bus5

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ রাজধানীর শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী রাজীব-দিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলার রায় হবে রোববার (০১ ডিসেম্বর)। এদিন বেলা তিনটায় ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করবেন।

এ মামলার মোট আসামি ছয়জন। যার মধ্যে জাবালে নূর পরিবহনের মালিক জাহাঙ্গীর আলম, দুই চালক মাসুম বিল্লাহ ও জুবায়ের সুমন এবং তাদের সহকারী এনায়েত হোসেন কারাগারে রয়েছেন।

জামিনে থাকা জাবালে নূর পরিবহনের আরেক মালিক শাহাদাত হোসেনের মামলা উচ্চআদালতের নির্দেশে স্থগিত আছে। আরেক চালকের সহকারী কাজী আসাদ পলাতক রয়েছেন।

এই মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ২৭৯, ৩২৩, ৩২৫, ৩০৪ ও ৩৪ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। যার মধ্যে ৩০৪ ধারায় অপরাধজনক নরহত্যার অভিযোগে সর্বোচ্চ শাস্তি রয়েছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

মামলায় আসামিদের আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল।

তাপস কুমার পাল বলেন, দুটি গাড়ির মধ্যে রেষারেষির ফলে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দুটি নিষ্পাপ কিশোর-কিশোরীর প্রাণ ঝড়ে যায়। এটিকে কোনোভাবেই নিছক দুর্ঘটনা বলা যায় না। বিচার শুরুর পর আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আমরা মামলাটি পরিচালনা করেছি। দণ্ডবিধির ৩০৪ ধারায় তাদের বিরুদ্ধে অপরাধজনক নরহত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। আমরা আশা করছি আইন অনুযায়ী আসামিরা সর্বোচ্চ শাস্তিই পাবেন।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাসস্ট্যান্ডে জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাসের রেষারেষিতে বাসচাপায় নিহত হন শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম রাজীব (১৭) ও একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মিম (১৬)। ওই দিনই নিহত মিমের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন।

এ মামলার ছয় আসামি। এদের মধ্যে জাবালে নূর পরিবহনের মালিক জাহাঙ্গীর আলম, দুই চালক মাসুম বিল্লাহ ও জুবায়ের সুমন এবং তাদের সহকারী এনায়েত হোসেন কারাগারে। জাবালে নূর পরিবহনের আরেক মালিক শাহাদাত হোসেন জামিনে রয়েছেন। তার পক্ষে মামলা উচ্চ আদালতের নির্দেশে স্থগিত রয়েছে। পলাতক চালকের সহকারী কাজী আসাদ।