সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রবাসীর বাড়িতে তিনজনকে হত্যার ঘটনায় বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য

১:৫৮ অপরাহ্ণ | রবিবার, ডিসেম্বর ৮, ২০১৯ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- বরিশালের বানারীপাড়ায় একই পরিবারের ৩ জনকে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। র‌্যাব ও পুলিশের দাবি, জিজ্ঞাসাবাদে তারা প্রাথমিক ভাবে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছে।

এসময় তাদের কাছ থেকে ১ টি ছুরি, খোয়া যাওয়া স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। র‍্যাব-পুলিশ জানিয়েছে, আটককৃতরা চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে।

শনিবার (০৭ ডিসেম্বর) রাত ৮টার দিকে বরিশাল সদর উপজেলার একটি গ্রাম থেকে জুয়েল হাওলাদার নামে একজনকে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আটক করে র‌্যাব-৮। এর আগে, এদিন দুপুর দেড়টার দিকে বানারীপাড়া উপজেলার শালিয়াবাকপুর এলাকা থেকে জাকির হোসেন নামক এক কবিরাজকে আটক করে জেলা পুলিশ।

গ্রেফতার কবিরাজ জাকির হোসেন ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলার সিদ্ধকাঠী ইউনিয়নের উত্তর রাজপাশা গ্রামের চুন্নু হাওলাদারের ছেলে। আর জুয়েল হাওলাদার নগরীর সাগরদীর মুন্সিবাড়ী এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকেন।

রোববার (৮ ডিসেম্বর) সকালে বরিশাল র‌্যাব-৮-এর সদর দফতর থেকে এসব তথ্য জানানো হয়।

র‌্যাব জানায়, বানারীপাড়ায় কুয়েত প্রবাসী আব্দুর রবের বাড়িতে তিনজনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এই রোমহর্ষক ঘটনার রহস্য উন্মোচনে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-৮ ছায়া তদন্ত শুরু করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ও র‌্যাব-৮ যৌথ অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে জাকির হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। প্রথমে জাকির হোসেন ওই বাড়িতে নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজ করত।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জাকির হোসেন র‌্যাবকে জানান- জিন হাজির ও ঝাড়ফুঁকের মাধ্যমে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা করেন বলে প্রচার করে তিনি বাড়ির সবার বিশ্বস্ততা অর্জন করেন। এ সুযোগ নিয়ে বাড়িতে জিন আসবে বলে রাতে দরজা খোলা রাখার কথা বলে ওই বাড়িতে কৌশলে প্রবেশ করেন এবং একজন সহযোগীকে নিয়ে পর্যায়ক্রমে কুয়েত প্রবাসী আব্দুর রবের মা, ভগ্নিপতি ও খালাতো ভাইকে হত্যা করেন।

র‌্যাব আরও জানায়, পরবর্তীতে র‌্যাব-৮ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও জাকিরের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী জুয়েল হাওলাদারকে গ্রেফতার কররা হয়। গ্রেফতার দুইজনই প্রাথমিকভাবে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।

এরপর জাকির হোসেন ও জুয়েল হাওলাদারের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী র‌্যাব-৮ ও পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে জাকির হোসেনের বাসা থেকে হত্যাকাণ্ডের পর ওই বাড়ি থেকে চুরি করে আনা স্বর্ণালংকার, তিনটি মোবাইল ফোন ও একটি চাকু উদ্ধার করে। গ্রেফতার আসামি ও আলামত বানারীপাড়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। র‌্যাবের ধারণা- লোভের বশবর্তী হয়ে তারা এ ধরনের ঘৃণ্য কাজ করেছেন।

বরিশালের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আব্দুর রকিব জানান, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাশাপাশি হত্যাকাণ্ডের পর ওই বাড়ি থেকে চুরি যাওয়া স্বর্ণালংকার, তিনটি মোবাইল ফোন ও একটি চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।

গত শুক্রবার (০৬ ডিসেম্বর) দিনগত রাতে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর এলাকার কুয়েত প্রবাসী আব্দুর রব হাওলাদারের বাড়িতে একই পরিবারের তিন সদস্যকে হত্যা করা হয়। এরা হলেন, প্রবাসী আব্দুর রবের মা মরিয়ম বেগম, খালাত ভাই মো. ইউসুফ এবং ভগ্নীপতি শফিকুল আলম।

আব্দুর রব ১১ বছর যাবত কুয়েতে একটি মসজিদে ইমামতি করেন। তার স্ত্রী ও সন্তান বাড়িতে থাকেন। নিহত তিনজনের মধ্যে ইউসুফ এবং শফিকুল আলম দুই দিন আগে বেড়াতে এসেছিলেন।

Loading...