সংবাদ শিরোনাম
মীরডাঙ্গীর ব্রীজটিই যেন গ্রামবাসির দুর্ভোগের একমাত্র কারণ! | তারেক এতো দূর্নীতি, অন্যায় ও মানুষ খুন করেছে তার সাহস নাই বাংলাদেশে আসার: কৃষিমন্ত্রী | ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ: ডিএনএ পরীক্ষায়ও মিলেছে মজনুর সম্পৃক্ততা | কুকরি মুকরিতে পর্যটকদের বাড়তি আনন্দ দিতে যোগ হয়েছে রংবেরঙের নৌকা | ভারতের পাটনায় বোরকা পরে কলেজে আসলে জরিমানা | লক্ষ্মীপুর ৫ম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে ৭০বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার | সীমান্তে হত্যার প্রতিবাদে জাবি ছাত্রের অনশন | সীমান্তে হত্যার প্রতিবাদে রাজু ভাস্কর্যে ঢাবি শিক্ষার্থীর অবস্থান | ‘সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণে বিএসএফ দুঃসাহস দেখাতে পারছে’ | শাহজাদপুরে ইয়াবা বিক্রেতা ও গরুচোরসহ ৭জন আটক |
  • আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সৌদিতে কেন আমাদের ধুঁকে ধুঁকে মরতে হচ্ছে? প্রধানমন্ত্রীকে নির্যাতিত নারী

১:০৭ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- সৌদি আরবে নির্যাতিত নারী শ্রমিক সেলিনা আক্তার দেশে ফেরার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চেয়ে আকুতি প্রকাশ করেছেন। এক ভিডিও বার্তায় সেলিনা প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ সহযোগিতা চেয়েছেন।

ভিডিওবার্তায় সেলিনা আক্তার বলেন, ‘হাজার হাজার মেয়েরা সৌদি আরবে নির্যাতিত হচ্ছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন নারী। তিনি সরকারে আছেন। কেন আমাদের সাহায্য করছেন না?

তিনি আরও বলেন, কেন আমাদের ধুকে ধুকে মরতে হচ্ছে? তার কাছে আমার একটাই অনুরোধ- আমাকে আমার স্বামী-সন্তানের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হোক। আমি আমার স্বামী-সন্তানের কাছে যেতে চাই।’

এর আগে সেলিনা আক্তার একাধিক ভিডিওতে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার আকুতি জানিয়েছেন বলে তার স্বামী উজ্জ্বল জানান।

সেলিনা বলেন, বিনা কারণেই আমাকে প্রায় প্রতিদিনই মারধর করে নিয়োগকর্তা ও তার স্বজনরা। গরম ইস্ত্রি দিয়ে ছ্যাকা দিতে আসে, চুল কেটে দিতে আসে। আমার পুরো শরীরে মারের (নির্যাতন) দাগ। পিঠে মারে, বুকে-মাথায় মারে। এসব জায়গা তো আর দেখানো যায়? আমি বার বার বলছি, আমাকে এখান থেকে নিয়ে যান। কেন নিচ্ছেন না?’

জানা গেছে, রাজধানী ঢাকার কদমতলী থানার পূর্ব জুরাইনের মো. উজ্জলের স্ত্রী সেলিনা আক্তার (বিএক্স-০৭১৩৯১৭) গত বছরের ডিসেম্বরে মেসার্স মিলেনিয়াম ওভারসিজ লিমিটেডের মাধ্যমে সৌদি আরবে যান।

যাওয়ার পর সেলিনা তার স্বামী এবং স্বজনদের কাছে এক ভিডিওবার্তা পাঠিয়ে নিয়োগকর্তা ও তার স্বজনদের শারীরিক নির্যাতন ও যৌন হয়রানির অভিযোগ করেন। এরপর প্রায় প্রতিদিনই ভিডিওবার্তায় তার ওপর শারীরিক, মানসিকসহ নানা নির্যাতনের কথা জানিয়ে আসছিলেন। তবে সেলিনা আক্তার দীর্ঘদিন ধরে দেশে ফেরার আকুতি জানালেও তাকে এখনও দেশে ফেরাতে পারেনি সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে সেলিনাকে সৌদি আরবে পাঠানো মেসার্স মিলেনিয়াম ওভারসিজ লিমিটেড কর্তৃপক্ষের কাছে দীর্ঘদিন ধরনা দিয়েও স্ত্রীকে ফেরাতে না পারায় গত নভেম্বরের মাঝামাঝি জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) বরাবর আবেদন করেন স্বামী মো: উজ্জ্বল। এরপর গত ২৪ নভেম্বর প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ওয়েজ আর্নার্স ওয়েলফেয়ার বোর্ডে তিনি আবেদন করেন নির্যাতিত স্ত্রীকে ফেরাতে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, সেলিনা আক্তারকে উদ্ধার করে দেশে পাঠানোর জন্য বিএমইটি এবং ওয়েজ আর্নার্স ওয়েলফেয়ার বোর্ড থেকে সৌদি আরবের রিয়াদ বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম উইংয়ে চিঠি লেখা হয়; কিন্তু, গতকাল সোমবার পর্যন্ত চিঠির কোনো জবাব দেয়নি শ্রম উইং।

দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএমইটির সহকারী পরিচালক (কর্মসংস্থান) প্রবীর দত্ত সেলিনার স্বামীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৭ নভেম্বর সংশ্লিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সিকে ২৮ নভেম্বরের মধ্যে তাকে দেশে ফেরত আনতে চিঠি দেন। রোববার বিকেলে এ বিষয়ে বিএমইটিতে গিয়ে তার সাথে কথা বলে জানা যায়, সংশ্লিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সি সেলিনাকে দেশে ফেরত আনা তো দূরের কথা চিঠির জবাবও দেয়নি। অন্য দিকে রিয়াদের বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম উইংকে চিঠি দিলেও কোনো জবাব আসেনি।

গতকাল সোমবার বিকেলে ওয়েজ আর্নার্স ওয়েলফেয়ার বোর্ডের দফতরে গিয়ে জানা যায়, তাদের চিঠিরও কোনো জবাব আসেনি সৌদি থেকে। বোর্ডের উপ-পরিচালক জাহিদ আনোয়ার বলেন, আমরা চিঠি লিখেছি। এখন তারা বিষয়টি দেখছে। এখন পর্যন্ত কোনো আপডেট তাদের (দূতাবাস) পক্ষ থেকে আমাদের জানানো হয়নি।

এদিকে, রিয়াদের বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মো: মেহেদী হাসানকে গত ৪ ডিসেম্বর থেকে বারবার চেষ্টা করেও ফোনে পাওয়া যায়নি। নিজের পরিচয় দিয়ে এসএমএস দিলেও কোনো সাড়া দেননি। ফার্স্ট সেক্রেটারি মোহাম্মদ আসাদুজ্জামানকে কয়েকবার ফোন দেয়ার পরও রিসিভ করেননি।

তবে নিজের পরিচয় দিয়ে এবং কারণ জানিয়ে এসএমএস দেয়ার পর তিনি পাল্টা এসএমএস দিয়ে জানান, সেলিনা আক্তারের বিষয়টি রাফি নামে (তার পদপদবি জানা যায়নি) একজন দেখছেন। এ জন্য তিনি একটি নম্বরও দেন। ওই নম্বরে দুই দিন অসংখ্যবার ফোন দিলেও রাফি ফোন ধরেননি।

Loading...