🕓 সংবাদ শিরোনাম

রোজিনার সঙ্গে যারা অন্যায় করেছে, তাঁদের জেলে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহকেরানীগঞ্জে ফ্ল্যাট থেকে যুবতীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারপাটগ্রাম সীমান্তে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের দায়ে নারী ও শিশুসহ ২৪জন আটকসাংবাদিকদের ভয় দেখিয়ে সরকার গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়: ভিপি নুরসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন: হানিফআর এমন ভুল হবে না: নোবেলস্বেচ্ছায় কারাবরণের আবেদন নিয়ে থানায় অনুসন্ধানী সাংবাদিকেরাইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে রাস্তায় ঢাবি শিক্ষক সমিতিযমুনা নদীতে ডুবে তিন কলেজ ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু‘বাংলাদেশে সাংবাদিকতাকে তথ্য চুরি বলা হচ্ছে, এর চেয়ে দুঃখ আর নেই’

  • আজ বুধবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৯ মে, ২০২১ ৷

খড়-কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারনের চেষ্টা!


❏ সোমবার, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯ রংপুর

ফয়সাল শামীম, ষ্টাফ রিপোর্টার: টানা ৬ দিন হাড়কাঁপানো শীতে পর সোমবার কিছু সময়ের জন্য সুর্যের দেখা পেয়েছে কুড়িগ্রামের মানুষ। এতে উঞ্চণতা সামান্য বৃদ্ধি পেলেও ঠান্ডার প্রকোপ রয়েই গেছে।

কুড়িগ্রাম কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ অফিস জানায় সোমবার জেলার সর্বনিন্ম তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১১ দশমিক ৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

কয়েক দিন পর সুর্যের দেখা মিললেও তাপমাত্রা নিন্মগামীই থেকে যাচ্ছে। কনকনে ঠান্ডার সাথে হিমেল হাওয়ায় দুর্ভোগে রয়েছে নিন্ম আয়ের মানুষজন।

প্রায় এক সপ্তাহের শৈত্য প্রবাহে গরম কাপড়ের অভাবে কনকনে ঠান্ডায় শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে শ্বাস কষ্ট, ডায়রিয়াসহ নানা শীত জনিত রোগে। হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে চিকিৎসা নিচ্ছে শীত জনিত রোগে আক্রান্ত রোগীরা।

কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: শাহিনুর রহমান সরদার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ২শ৬ জন রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদের মধ্যে শ্বাস কষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছে ১০ জন শিশু এবং ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ২৬ জন। ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ২৬ জনের মধ্যে ২৩ জনই শিশু।

এছাড়াও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শীত জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে জেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে চিকিৎসা নিচ্ছেন শিশু ও বৃদ্ধরা।

ঠান্ডায় দুর্ভোগে রয়েছে জেলার ৪ শতাধিক চরাঞ্চলের মানুষজন। শীত নিবারনের গরম কাপড় না থাকায় খড়-কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারনের চেষ্টা করছেন তারা। অনেকেই ছুটছেন পুরাতন কাপড়ের দোকানে।

জেলার হতদরিদ্র ছিন্নমুল মানুষেরা তীব্র শীত কষ্টে ভুগলেও সরকারী বা বেসরকারী ভাবে শীত বস্ত্র বিতরনের কোন তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়নি।

কুড়িগ্রামের শীতকষ্টে থাকা অসহায় ছিন্নমুল মানুষদের আপনার ব্যবহিত কাপড় অথবা কম্বল দিতে চাইলে আমাদের ষ্টাফ রিপোর্টার ফয়সাল শামীম-০১৭১৩২০০০৯১।

সময়ের কণ্ঠস্বর/ফয়সাল