• আজ ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘ছোট ভাইয়ের জন্য কষ্টে বুকটা ফেটে যাচ্ছে নুরের’

❏ বুধবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- রোববার (২২ ডিসেম্বর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) মূল ফটক বন্ধ করে ভিপি নুর ও তার সহযোগীদের ওপর লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায় ছাত্রলীগ ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

এ হামলায় আহত হয়েছেন ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর এর আপন ছোট ভাই আমিনুল। এ ঘটনায় আহত আরও ২৩ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। এর মধ্যে ছয় জনকে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

জানা যায়, ডাকসু ভবনে বড় ভাই ভিপি নুরের ওপর হামলা ঠেকাতে ছোট ভাই দাঁড়িয়ে যান সামনে। পেতে দেন নিজের বুক। হামলাকারীদের বড় আক্রমণগুলো গিয়ে পড়ে তার ওপর। ভাইকে কিছুটা রক্ষা করতে পারলেও নিজেই আহত হন বেশি।

নির্মম এ হামলায় আহত ভিপি নুরুল হক নুর নিজে অসুস্থ হলেও ছোট ভাইকে দেখতে ছুটে যাচ্ছেন মাঝে মাঝে। দুজনেই বর্তমানে চিকিৎসা নিচ্ছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের হাসপাতালে।

ভাইকে নিয়ে বর্তমানে কেবিনে চিকিৎসারত নুরকে দেখা গেছে উদ্বেগ প্রকাশ করতে। বুধবার সন্ধ্যায় সে ঘটনারই বিবরণ দেন ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতা মসিউর রহমান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কয়েকটি ছবি দিয়ে তিনি লেখেন-

‘এ যে রক্তের সাথে রক্তের টান, আত্মার সাথে আত্মার বাঁধন….

অসুস্থ ডাকসু ভিপি নুরুলহক নুর আপন ছোটভাই আমিনুরকে দেখতে গিয়েছেন। আমিনুর এর অবস্থা এখনও আশংকাজনক।

ছোট ভাইয়ের জন্য কষ্টে বুকটা ফেটে যাচ্ছিলো নুর ভাইয়ের। তাই আমাদের শতো বাধা সত্বেও অসুস্থ শরীর নিয়েই ছোট ভাই আমিনুরকে দেখতে তার কেবিনে ছুটে যান নুরুল হক নুর…….এটাই তো আত্মার টান, ভালোবাসার বন্ধন..’

এদিকে একই হামলার ঘটনায় আহত বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক এ পি এম সোহেলের মাথায় অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে। মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে জরুরি ভিত্তিতে সোহেলকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নেওয়া হয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেরর উপ-পরিচালক ডা. আব্দুর রহিম বলেন, ‘সোহেলের অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। রাত ৯টায় তাকে অস্ত্রোপচার কক্ষে নেওয়া হয় এবং রাত সাড়ে ৯টায় অস্ত্রোপচার শেষ হয়।’

ডা. আব্দুর রহিম বলেন, ‘আগেই জানানো হয়েছিল সোহেলের মাথায় ফ্যাক্চার ছিল। বিকেলে তার মাথার আরও একটি সিটিস্ক্যান করা হয়। রিপোর্ট দেখে রাতে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেয় চিকিৎসকরা।’

উল্লেখ্য, ভিপি নুরসহ তার অনুসারীদের উপর হামলার ঘটনায় সোমবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আল মামুন ও ঢাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত তূর্যকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

পরে মঙ্গলবার মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আরেক নেতা মেহেদী হাসান শান্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। হামলার ঘটনায় এদিন পুলিশ বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় মামলা দায়ের করে। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আট জনের নাম উল্লেখ করে আরও ৩০ থেকে ৩৫ জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। পরে এই মামলায় মামুন ও তূর্যকে গ্রেফতার দেখানো হয়। এই দু’জন ও মেহেদীকে পরে আদালতে তোলা হলে আদালত তাদের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

এদিকে এ ঘটনায় মামলা করেছেন ভিপি নুরও। ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিৎ চন্দ্র দাসকে এক নম্বর ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইনকে দুই নম্বর আসামি করে ৩৭ জনের নামে মামলা দায়ের করেন তিনি।