🕓 সংবাদ শিরোনাম

রোজিনার সঙ্গে যারা অন্যায় করেছে, তাঁদের জেলে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহকেরানীগঞ্জে ফ্ল্যাট থেকে যুবতীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারপাটগ্রাম সীমান্তে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের দায়ে নারী ও শিশুসহ ২৪জন আটকসাংবাদিকদের ভয় দেখিয়ে সরকার গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে চায়: ভিপি নুরসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন: হানিফআর এমন ভুল হবে না: নোবেলস্বেচ্ছায় কারাবরণের আবেদন নিয়ে থানায় অনুসন্ধানী সাংবাদিকেরাইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে রাস্তায় ঢাবি শিক্ষক সমিতিযমুনা নদীতে ডুবে তিন কলেজ ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু‘বাংলাদেশে সাংবাদিকতাকে তথ্য চুরি বলা হচ্ছে, এর চেয়ে দুঃখ আর নেই’

  • আজ বুধবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৯ মে, ২০২১ ৷

শরণার্থী সংকট সমাধানের আহ্বান জানালেন পোপ ফ্রান্সিস

pop
❏ বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

ঈসমাইল হোসেন স্বপন,ইতালি থেকে: খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড়ো ধর্মীয় উৎসব বড়দিন উপলক্ষে বিশ্বের ১৩০ কোটি রোমান ক্যাথলিকের নেতা পোপ ফ্রান্সিস সেন্ট পীটার্স ব্যাসিলিকার কেন্দ্রীয় বারান্দায় দাঁড়িয়ে ঐতিহ্যবাহী বড় দিনের বার্তা প্রদান করেছেন।

খ্রীস্টান ধর্মের শীর্ষনেতা পোপ ফ্রান্সিস বড় দিনের সূচনায় বলেছেন, ঈশ্বর এখনো আমাদের সবাইকে ভালোবাসেন, এমনকি সবচেয়ে নিকৃষ্ট মানুষটিকেও। ভ্যাটিকানের সেন্ট পিটারস ব্যাসিলিয়ায় হাজার হাজার মানুষের সামনে পোপ ফ্রান্সিস এই মন্তব্য করেছেন।

তিনি আরও বলেছেন, আপনার পরিকল্পনা ভুল হতে পারে, আপনি সবকিছু নষ্ট করে দিতে পারেন... কিন্তু ঈশ্বর আপনাকে ভালোবেসে যাবেন।

এসময় মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশগুলোতে শান্তির জন্য প্রার্থনা করেছেন। খ্রিস্টানদের প্রধান ধর্ম যাজক পোপ ফ্রান্সিস বলেছেন, ‘আমি ইয়েমেনের শিশুদের কথা ভাবি।’

তাছাড়া দ্বন্দ্ব ও সংঘাতের জেরে তৈরি হওয়া শরণার্থী সংকট সমাধানের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘নিজ দেশ ছেড়ে মরুভূমি ও সমুদ্র পাড়ি দিয়ে অন্য দেশে আশ্রয় নিতে শরণার্থীদের বাধ্য করা অন্যায়। তাদেরকে অবর্ণনীয় কষ্ট আর নির্যাতনের মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। এটা অন্যায় যে, যেখানে মর্যাদাপূর্ণ জীবন ধারণের কথা ছিলো সেখান থেকে তাদেরকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে।’

পোপ তার বক্তব্যে, ভেনিজুয়েলার চলমান অর্থনৈতিক সংকট সমাধান ও সেখানকার মানুষদেরকে সহায়তা করার জন্য বিশ্ব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান।

এছাড়া ভ্যাটিকানে বড়দিন শুরুর আগের সন্ধ্যায় প্রার্থনায় সেখানে অংশ নেয় বহু শিশু। ভেনেজুয়লা, ইরাক ও উগান্ডাসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বাছাই করে ওই শিশুদের আনা হয়।

উল্লেখ্য, খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ক্রিসমাস বা বড়দিন। ২৫ ডিসেম্বর যিশু খ্রিস্টের জন্মের দিনে এই উৎসবটি পালিত হয়। কারণ খ্রিস্টধর্মের প্রবর্তক যিশু খ্রিস্ট এদিনই বেথলেহেম নগরীতে অলৌকিকভাবে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।