পরীক্ষার সুযোগ পেলেন বুয়েটের বহিষ্কৃত আরও তিন শিক্ষার্থী

buet
❏ শুক্রবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯ শিক্ষাঙ্গন

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ র‌্যাগিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) একাডেমিক কার্যক্রমের বিভিন্ন টার্মে বহিষ্কার হওয়া আরও তিন শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

তিন শিক্ষার্থী হলেন-সব্যসাচী দাস দিব্য, সৌমিত্র লাহিড়ী ও প্লাবন চৌধুরী। এ নিয়ে বুয়েটের মোট ১৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেলেন।

ওই শিক্ষার্থীদের করা রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

আদালতের তিন ছাত্রের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ এম আমিন উদ্দিন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মাহফুজা বেগম।

মাহফুজা বেগম বলেন, ‘আদালত তার আদেশে এই তিন ছাত্রকে তাদের আসছে টার্ম পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দিতে নির্দেশ দিয়েছেন। তবে, তাদের বহিষ্কার সংক্রান্ত সিদ্ধান্তের বিষয়ে আদালত রুলও জারি করেছেন। যদি ওই রুল পরবর্তীতে খারিজ হয়, সেক্ষেত্রে এই ছাত্রদের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হবে না। আর যদি রুল যথাযথ হয় তাহলে এদের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হবে।’

এর আগে ২৪ ডিসেম্বর একই আদালত আরও ১০ শিক্ষার্থীর বিষয়ে এমন আদেশ দিয়েছেন। ওই ১০ শিক্ষার্থী হলেন মির্জা মোহাম্মদ গালিব, মো. জাহিদুল ইসলাম, মো. মুন্তাসিম, আসিফ মাহমুদ, মুনতাসির আহমেদ, আনফালুর রহমান, অর্ণব চৌধুরী, নাহিদ আহমেদ, তানভীর হাসনাইন ও মোহিবুল্লাহ।

আইনজীবীরা জানান, র‍্যাগিংয়ের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বুয়েট এসব শিক্ষার্থীকে একাডেমিক কার্যক্রম থেকে বিভিন্ন মেয়াদে ও আবাসিক হল থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের এ শাস্তি দেওয়া হয়। এর বিরুদ্ধে বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা একাডেমিক কাউন্সিলে আপিল করলে তা খারিজ হয়ে যায়। পরে এর বৈধতা নিয়ে তারা পৃথক রিট করেন।

রুলে তাদের আপিল খারিজ করে একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত কেন বেআইনি হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। একাডেমিক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও ছাত্রকল্যাণ পরিদফতরের পরিচালকসহ বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।