রংপুরে শীতে শিশুসহ ২সপ্তাহে মৃত্যুর সংখ্যা-২৫

❏ শুক্রবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯ রংপুর
Rangpur Heavy Cold Dead

সাইফুল ইসলাম মুকুল,রংপুর প্রতিনিধি: রংপুরসহ উত্তরাঞ্চলে প্রচন্ড শৈত্য প্রবাহ শুরু হয়েছে। এক দিকে যেমন শীত অন্যদিকে শৈত্য প্রবাহের সাথে কনকনে বাতাস শীতের তীব্রতাকে যেন বহুগুনে বাড়িয়ে দিয়েছে। শৈত্য প্রবাহের কারণে নিউমোনিয়া,ডাইরিয়া আর রোটা ভাইরাস সহ বিভিন্ন রোগ ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। ১২ দিনে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশুসহ ২৫ জন মারা গেছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কতৃপক্ষ।

রমেক হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে,গত ২৪ ঘন্টায় শীত জনিত ও আগুন পোহাতে গিয়ে দগ্ধ রোগী মারা গেছে ৩ জন। আজ শুক্রবার সকালে শিশু ওর্য়াডে শীত জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে রংপুর পীরগাছার কান্দি এলাকার দিনমজুর নজরুল ইসলামের ৩ বছরের ছেলে আরমান মারা গেছে। এ নিয়ে ১২দিনে রমেকে প্রাণহানির সংখ্যা দাড়ালো ২৫ জনে। অন্যদিকে আগুন পোহাতে গিয়ে দগ্ধ হয়ে বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা ২৬ জন। এদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশংকাজনক।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান ডাঃ আব্দুল হামিদ জানান, গত কয়েক দিনে আগুনে দগ্ধ ৪ জন রোগী মারা গেছেন।বর্তমানে ২৬ দগ্ধ রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন তাদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশংকাজনক। তাদেরকে এখনো ৩ জন রোগী আশংকাজনক অবস্থায় আছেন। তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার ঢাকায় রেফার করার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

উত্তরাঞ্চলের একমাত্র চিকিৎসা কেন্দ্র রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিদিনই গড়ে শতাধিক শিশু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের বর্হি বিভাগে চিকিৎসা নিচ্ছেন। মুমুর্ষ অবস্থায় অনেক শিশু হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা, শাহাদত হোসেন, গত ১২ দিনে শিশুসহ দগ্ধ রোগীদের মারা যাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, রংপুর সহ উত্তরাঞ্চলে প্রচন্ড শীতে নিউমোনিয়া রোটা ভাইরাস সহ বিভিন্ন রোগ বালাই ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, এক হাজার বেডের এ হাসপাতালে সব সময় দুই হাজারেও বেশী রোগী থাকে ফলে তাদের করার কিছু নেই। তিনি শিশুদের দিনের বেলা বাসা থেকে বের না করা এবং গরম কাপড় ছাড়া কোন অবস্থাতেই ঘরের বাইরে বের না হবার উপদেশ দিয়েছেন।

রংপুর আবহাওয়া অফিসের সহকারী পরিচালক মোস্তাফিজার রহমান জানান, শুক্রবার সকালে রংপুরে সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ছিল ৮ দশমিক৬ ডিগ্রী। তবে শৈত্য প্রবাহ কমতে পারে।