🕓 সংবাদ শিরোনাম

গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি হামলায় কমপক্ষে ৩৩ জনের মৃত্যুচট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ২৫, মৃত্যু ৪সুনামগঞ্জে বিদ্যুতায়িত হয়ে মা ও ছেলেসহ ৩ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুসৌদি আসতে দিতে হবে করোনা ভ্যাকসিন, নয়তো থাকতে হবে কোয়ারেন্টিনেএখনো ঈদ করতে বাড়ী আসছে দক্ষিনঅঞ্চলের ২১জেলার হাজার হাজার মানুষকরোনার হটস্পট কেরানীগঞ্জ, ঈদে ছাপ নেই স্বাস্থ্য বিধিরবস্তার দোকানে মাদকের ব্যবসা, দুই জন আটকডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি গ্রেপ্তারভারত থেকে চট্টগ্রামে আসা ৪ জনের করোনা শনাক্ত ত্রিশালে পণ্য বিপনন মনিটরিং কমিটির মতবিনিময় সভা

  • আজ রবিবার, ২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৬ মে, ২০২১ ৷

দিল্লিতে ১১৮ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা!

dilli
❏ শনিবার, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ প্রচন্ড ঠান্ডায় কাঁপছে উত্তর ভারত। ঠান্ডায় জবুথবু ভারতের রাজধানী দিল্লিও। অবস্থা এমন যে, দিল্লিতে তাপমাত্রার পারদ নেমে গেছে ২.৪ ডিগ্রিতে। যা কেবল এই মৌসুমের সর্বনিম্নই নয়, ১১৮ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, ১৯০১ সালে শেষ দিল্লিতে এরকম ঠান্ডা পড়েছিল।

আবহাওয়া অধিদফতর থেকে জানানো হয়েছে, শনিবার সকালে দিল্লির সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই মরসুমের আজ শীতলতম দিন। ১৯০১ সালের পর ডিসেম্বর মাসে এত নীচে নামেনি পারদ। সেইসঙ্গে গোটা দিল্লি জুড়ে ঘন কুয়াশার চাদর দেখা যাচ্ছে। ফলে দৃশ্যমানতা কমছে। তার প্রভাব পড়ছে পরিবহণে।

জানা গিয়েছে, দিল্লির রেল ও বিমান পরিষেবা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শনিবার সকাল থেকে চারটি বিমান বাতিল করা হয়েছে। দৃশ্যমানতা কম থাকায় দিল্লিতে অবতরণ করতে পারেনি কোনও বিমান। প্রায় ২৪টি ট্রেন দেরিতে চলছে বলে খবর। রাস্তাঘাটেও যানজট দেখা দিচ্ছে। গাড়িঘোড়ার গতি বেশ কম।

দিল্লির পাশাপাশি হাড় হিম করা ঠান্ডায় কাঁপছে উত্তরপ্রদেশও। প্রচন্ড ঠান্ডায় উত্তরপ্রদেশে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২৮ জনের। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বুন্দেলখণ্ড ও মধ্য উত্তরপ্রদেশে মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। কানপুরে ১০ জনের ও বারাণসীতে চার জনের।

আবহাওয়া বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আগামীকাল রোববার (২৯ ডিসেম্বর) সবচেয়ে শীতলতম দিন হতে পারে। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ রাতে বিভিন্ন শেল্টার হোমে গিয়ে পরিদর্শন করেন এবং গরিব মানুষদের কম্বল বিতরণ করেছেন।

এদিকে ঠান্ডার জন্য উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন জেলার একাধিক স্কুল আগামীকাল বন্ধ থাকবে। কারণ কনকনে শীতে বাড়ি থেকে বের হওয়া মুশকিল হয়ে গেছে মানুষের।