জেএসসি-জেডিসি: পাসের হার ও জিপিএ-৫ দুটোই বেড়েছে

⏱ | মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯ 📁 আলোচিত বাংলাদেশ
jsc (1)

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার পাসের হার ও জিপিএ-৫ দুটোই বেড়েছে।

এবছর জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় পাসের হার ৮৭ দশমিক ৯০ ভাগ। গত বছর পাসের হার ছিল ৮৫ দশমিক ৮৩ ভাগ। এবছর পাসের হার গত বছরের তুলনায় ২ দশমিক ০৭ ভাগ বেশি।

এবছর ২৬ লাখ দুই হাজার ৫৩ জন অংশগ্রহণকারী পরিক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ২২ লাখ ৮৭ হাজার ২৭১ জন, যা গত বছর ছিল ২২ লাখ ৩০ হাজার ৮২৯ জন। এবছর বেশি পাস করেছে ৫৬ হাজার ৪৪২ জন।

এবছর মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৮ হাজার ৪২৯ জন, যা গত বছর ছিল ৬৮ হাজার ৯৫ জন। এবছর জিপিএ-৫ ১০ হাজার ৩৩৪ জন বেশি পেয়েছে।

এর আগে, সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। এরপর বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যানরা নিজ নিজ বোর্ডের ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

এরপর সকাল সাড়ে ১১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে জেএসসি-জেডিসির ফলাফলের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এবার ৫ হাজার ২৪৩টি স্কুল ও মাদরাসার সবাই পাস করেছে। অপরদিকে ৩৩টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কেউ পাস করতে পারেনি। শতভাগ পাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৪৭৪টি বেড়েছে। অপরদিকে শতভাগ ফেল করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১০টি কমেছে। গত বছর শতভাগ পাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল চার হাজার ৭৬৯টি এবং শূন্য পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ৪৩টি।

ফলাফলের সার-সংক্ষেপ পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ঢাকা বোর্ডে ৩২৭, রাজশাহীতে ৮২০, কুমিল্লায় ২৩৯, যশোরে ৪৯৬, চট্টগ্রামে ১০২, বরিশালে ৭৮৩, সিলেটে ১৭৬, দিনাজপুরে ২৮৪ ও ময়মনসিংহ বোর্ডে ১৭৩টি শতভাগ পাস স্কুল রয়েছে। মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডে শতভাগ পাস প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা এক হাজার ৮৪৩টি, গত বছর এ সংখ্যা ছিল এক হাজার ৭২৭টি।

অপরদিকে ঢাকা বোর্ডে ২, রাজশাহীতে ২, দিনাজপুরে ৯ ও ময়মনসিংহ বোর্ডে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থী পাস করতে পারেনি। এছাড়া কুমিল্লা, যশোর, চট্টগ্রাম ও সিলেট বোর্ডে কোনো শূন্য পাস স্কুল নেই। মাদরাসা বোর্ডের ১৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কেউ পাস করেনি। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ২৩টি।