সংবাদ শিরোনাম
সম্মেলন ডেকে হেফাজতের আমির নির্বাচন করা হবে: বাবুনগরী | সেনা কর্মকর্তা পরিচয়ে ৯ বছরে ৯ বিয়ে! অপেক্ষায় আরও ৪ | ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পুনর্নিয়োগ অনৈতিক ও বিধিবহির্ভূত: টিআইবি | চরফ্যাসনে ফার্মেসীতে র‍্যাবের অভিযান, দোকান বন্ধ করে পালাল ব্যবসায়ীরা | ইউএনও ওয়াহিদা ও তার স্বামীকে ঢাকায় বদলি | সবুজপাতা সফটওয়্যার ও মোবাইল অ্যাপসের উদ্বোধন করলেন রেলমন্ত্রী | ট্রাকচাপায় ছাগল মারা যাওয়ায় চালককে পিটিয়ে হত্যা | হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শুরু | রংপুরে দুই বোনের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা | ১৯ বছরেই সফল ডিজিটাল মার্কেটার তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী তুহিন |
  • আজ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিলো ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা গড়া: কৃষিমন্ত্রী ড. রাজ্জাক

৮:৪৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, জানুয়ারি ১৩, ২০২০ জাতীয়
Tangial D. Razzak pic

মোল্লা তোফাজ্জল, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিলো ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা গড়া। তারই কন্যা শেখ হাসিনা এখন বাংলাদেশটাকে শুধু ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্তই নয়, খাদ্যে উবৃত্তের দেশ বানিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, উন্নত এই শান্তিপ্রিয় দেশে বিএনপি-জামায়াত অশান্তি করতে চায়। তিনি খালেদা-তারেকের নাম উল্লেখ করে বলেন, শেখ হাসিনার এই শান্তির দেশে কেউ অশান্তি করতে চাইলে তাদেরকে উচিত শিক্ষা দেয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের উন্নয়নের মূল চালিকা শক্তি হলো কৃষি ও কৃষক। কাজেই কৃষিকে আধুনিকীকরণ, যান্ত্রিকীকরণ এবং বাণিজ্যিকীকরণ করতে হবে। কৃষিকে যে কোন মূল্যে লাভজনক করতে হবে। আর এ জন্য যা-যা করণীয় তার সবকিছুই করে যাচ্ছে বর্তমান সরকার। উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত ও বিভিন্ন ফসলের জাত উদ্ভাবন করা হচ্ছে। দশ-এগারো বছর সাধনা করে আমাদের কৃষি বিজ্ঞানিরা এক-একটা উন্নত জাতের ফসলের জাত উদ্ভাবন করে যাচ্ছেন। যার ফলে এখন বিঘা প্রতি পাঁচ-ছয় নয়, এখন ৩০/৩৫ মণ ধান উৎপাদন হয়। এক দেড় লিটার দুধ থেকে এখন প্রতিটি গাভী ২০/২২ লিটার দুধ দেয়। আর এগুলোই হলো কৃষিতে বর্তমান সরকারের সাফল্য।

তিনি সোমবার টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার ভাতকুড়া গ্রামের সিআইজিভুক্ত কৃষকদের মাঝে ভর্তুকি মূল্যে কৃষিযন্ত্রপাতি বিতরণ ও রাইস প্লান্টারের মাধ্যমে বোরো ধানের চারা রোপণ কার্যক্রম উদ্বোধন উপলক্ষে কৃষক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আগে সারের জন্য লাইন ধরতে হতো। আমরা সারের দাম কমিয়ে সহজলভ্য করেছি। বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমালে যে ডিএপি সার ছিলো ৯০ টাকা কেজি। সেই ৯০ টাকা কেজির ডিএপি সার এখন ১৬ টাকায় করা হয়েছে। কৃষিকে যান্ত্রিকীকরণের জন্য চাষ-আবাদ, ফসল কাটা, মারাই বিশেষ করে ধান লাগানো এবং কাটার মেশিন কৃষক পর্যায়ে দেয়া হচ্ছে। যা বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সাল থেকেই শুরু করে ছিলেন।  ৫০ ভাগ ভর্তুকিতে কৃষি যন্ত্রপাতি কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি বিভাগ আয়োজিত কৃষি সচিব মো. নাসিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে কৃষক সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ হাসান, কৃষি সম্প্রসাধণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মো. আব্দুল মুঈদ, ধান গবেষনা ইনস্টিটিটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর, কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিটের মহাপরিচালক আবুল কালাম আযাদ, ধনবাড়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হারুনার রশিদ হিরা, পৌর মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন, কৃষক আনোয়ার হোসেন প্রমূখ।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন টাঙ্গাইল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা আজহার সিদ্দিকী।