সংবাদ শিরোনাম

জাল বিমান টিকিট, জাল ভিসাসহ মানব পাচারকারী গ্রেপ্তারসালথায় তান্ডব: সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গ্রেপ্তারপটুয়াখালীতে পরিত্যক্ত ড্রোন উদ্ধার, মালিকানা দাবি বেলজিয়াম নাগরিকের৪ দিন পর একশোর নিচে মৃত্যুপ্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার; পরিবারের দাবি পরিকল্পিতভাবে হত্যাস্বামী ঘুমে, স্ত্রী ঝুলে আছে ফাঁসির রশিতেহেফাজতের প্রতি দুর্বলতা দেখানোর সুযোগ নেই: নানকমাদারীপুর সদর হাসপাতালে টিকার জন্যে দীর্ঘ লাইন, স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেইঅ্যাডিশনাল এসপি শামিম আমার গায়ে হাত তুলেছে: কাদের মির্জাকোভিড ভ্যাকসিনকে বিশ্বজনীন পণ্য হিসেবে ঘোষণা করা উচিত: প্রধানমন্ত্রী

  • আজ মঙ্গলবার। গ্রীষ্মকাল, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। বিকাল ৫:৫০মিঃ

আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা

১:০১ অপরাহ্ন | রবিবার, জানুয়ারী ১৯, ২০২০ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা। মোনাজাতে ইহকালে শান্তি, পরকালে মাগফেরাত এবং বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

রোববার (১৯ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে এই আখেরি মোনাজাতে লাখো মুসল্লি অংশ নেন। মোনাজাত পরিচালনা করেন দিল্লির মাওলানা জমশেদ। মোনাজাতে লাখ লাখ মুসল্লির ‘আমিন আমিন’ ধ্বনিতে পুরো টঙ্গী প্রকম্পিত হয়ে ওঠে।

এর আগে ফজরের নামাজের পর থেকে হেদায়েতি বয়ান শুরু হয়। আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে ভোর থেকে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা টঙ্গীর তুরাগ তীরের বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে জড়ো হতে থাকেন।

টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে তাবলিগ জামাতের এই বিশ্ব সম্মিলন এবারও দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হয়। শেষ পর্বে অংশ নেন দিল্লির মাওলানা সাদ কান্ধলভির অনুসারীরা। আর প্রথম পর্বে ইজতেমা করেন সাদবিরোধীরা।

চার দিন বিরতির পর গত ১৭ জানুয়ারি (শুক্রবার) ফজর নামাজের পর আম বয়ানের মাধ্যমে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়। আজ রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমা।

বিশ্ব ইজতেমার মোনাজাতে অংশ নিতে লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান টঙ্গীর তুরাগ তীরে অবস্থান করেন। রবিবার ভোর থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়। ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল থেকে আসা গাড়িগুলো ভোগড়া বাইপাস এলাকায় আটকে দেওয়া হয়। সিলেট রুটের গাড়িগুলো মিরের বাজার এলাকায় নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এছাড়া সাভার ও আশুলিয়া থেকে আসা গাড়িগুলো কামারপাড়া ব্রিজের আগেই থামানো হয়।