হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবনে তালাঃ ওরিয়েনটেশন পন্ড

৫:১২ অপরাহ্ণ | সোমবার, জানুয়ারি ২৭, ২০২০ রংপুর
Dinajpur-Hajee Danesh

শাহ্ আলম শাহী,স্টাফ রিপোর্টার,দিনাজপুর: দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবন ও লাইব্রেরীতে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে শিক্ষার্র্থীরা। এতে প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়েছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে নবাগত শিক্ষার্থীদের জন্য আয়োজিত ওরিয়েনটেশনের অনুষ্ঠান পন্ড হয়ে গেছে।

এ কারণে অনুষ্ঠানে যোগদিতে আসা দূর-দুরান্ত থেকে আগত প্রায় ৩ শকাধিক শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকেরা চরম ভোগান্তির শিকার হয়েছে।বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগে অনিয়ম,যৌন হয়রানি বন্ধ এবং বিচারহীনতা ঘটনাসহ ১১ দফার দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সৃষ্টি হয়েছে এ অচলাবস্থা।

একই দাবীতে রোববার বিকেল ৫ থেকে রাত সোয়া একটা পর্যন্ত প্রায় সোয়া ৮ ঘন্টা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবন তালা ঝুলিয়ে রেজিষ্টার প্রফেসর ডা.ফললুল হক, অর্থ বিভাগের পরিচালক প্রফেসর ড.শাহাদৎ হোসেন খান লিখনসহ প্রক্টর এবং উপদেষ্টসহ বিভিন্ন পদে দ্বায়িত্বশীল শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করে রাখে আন্দোলনরত ছাত্ররা। সকালে আলোচনায় বসার প্রতিশ্রুতির প্রেক্ষিতে তাদের ছেড়ে দেয়া হলেও আলোচনায় বসেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ফলে তারাবিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক ভবন ও লাইব্রেরীতে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পদে ১০জন কর্মকর্তা এবং ৪৯জন কর্মচারি নিয়োগের বিষয়ে রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ওয়েব সাইটে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ঘটনা জানাজানির সাথে তাৎক্ষনিকভাবে আন্দোলনে নামে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বিকেল সোয়া ৫টার দিকে ওরিয়েনটেশনের মঞ্চ ভাংচুর করে। প্রশাসনিক ভবনে তালা দিয়ে রেজিষ্টার, প্রক্টর এবং উপদেষ্টসহ বিভিন্ন পদে দ্বায়িত্বশীল শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করে রাখে তারা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবার হুসিয়ারি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

আজ সকাল থেকে প্রশাসনিক ভবন ও লাইব্রেরিতে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। লাইবেরিয়ান পদে বিএনপি পন্থী শিক্ষক প্রফেসর ড. রেজাউল করিমকে পদায়ন করা, যৌন হয়রানির বিচার না করার ঘটনা এবং অনিয়মসহ বিভিন্ন অভিযোগের সুরাহাসহ ১১ দফা দাবিতে তারা আন্দোলন শুরু করায় অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

অন্যদিকে রিজেন্ট বোর্ডের সুপারিশ অনুযায়ী পদোন্নতির দাবিতে অর্ধদিবস কলম বিরতিসহ অবস্থান ধর্মঘট পালন করছে সহকারি প্রশাসনিক পদের কর্মকর্তারা। এক দফার ওই দাবিতে গত দেড়মাস ধরে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছেন প্রায় শতাধিক সহকারি প্রশাসনিক কর্মকর্তা।বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও  কর্মচারীদের পদোন্নতি/পর্যায়োন্নয়ন নীতিমালা সংক্রান্ত প্রবিধান (সংশোধিত)২০০৯ এর ধারা-২স্পষ্টীকরণ,সংযোগন,পরিবর্ধন ও পরিমার্জন সংক্রান্ত বিয়য়ে ২০১৮ সালের ৯ জানুয়ারী রিজেন্ট বোর্ডের ৪১তম সভায় ৫ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেন,বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভাইস-চ্যাঞ্জেলর অধ্যাপক ড.এ.কে.এম. নুর-উন-নবী,মাওলানা ভাষানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যাঞ্জেলর প্রফেসর ড.মো.আলাউদ্দীন দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মো. মিজানুর রহমান,প্রফেসর ড.ফাহিমা খানম ও প্রফেসর প্রফেসর ড. মো.শাহাদৎ হোসেন খানের সমন্বয়ে গঠিত কমিটি যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে পদোন্নতির দেয়ার কথা জানিয়ে যথাসময়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্টও পেশ করেছেন। কিন্তু,আটকে আছে,তাদের পদোন্নতি।

এ সব ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার প্রফেসর ডা. ফজলুল হক জানান, নিয়ম মেনেই সমস্যার সমাধান করার প্রক্রিয়া চলছে।