• আজ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইরানের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করল প্রতিবেশী চার দেশ

৯:২৪ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০ আন্তর্জাতিক
iran

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইরানে আটজন মারা গেছেন। যা চীনের বাইরে কোনো দেশে সর্বাধিক মৃত্যুর ঘটনা। এতে কভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে বেইজিংয়ের প্রতিবেশী দেশগুলোকে গভীর সংকটে পড়তে হয়েছে বলেই ধরে নেয়া হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ইরানের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিবেশী তুরস্ক, পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং আর্মেনিয়া।

রোববার নতুন করে তিন করোনাভাইরাস রোগীর মৃত্যুর কথা জানিয়েছে ইরান। আর গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ১৫ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এতে দেশটিতে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ জন আর মারা গেছেন আট রোগী।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কিয়ানুশ জাহানপুর বলেন, তেহরানে নতুন চার কোভিড-১৯ রোগী, পবিত্র শহর কুয়ামে সাত, গিলানে দুই ও মারকাজি ও টোনেকাবোনে একজন করে রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

প্রতিরোধমূলক পদক্ষেপ হিসেবে দেশজুড়ে ১৪টি প্রদেশের সব স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য শিক্ষাকেন্দ্র বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া চারুকলার প্রদর্শনী, কনসার্ট ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনীও এক সপ্তাহের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে একজন বলেন, আমরা সবাই আতঙ্কিত। অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মাস্ক গ্লাভসের সঙ্কট বেড়েছে। সরকারের উচিত প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দিয়ে সাধারণ মানুষকে সহায়তা করা।

ইতালিতে ১৩২ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন দু’জন। বাণিজ্যিক রাজধানী মিলানের উত্তরাঞ্চলীয় লোম্বাার্ডিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৯ জন। জনসমাবেশে আরোপ করা হয়েছে বিধিনিষেধ। দুইদিন আগেই স্থগিত করা হয়েছে ভেনিস কার্নিভাল। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই বলে জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

রোববার চীনা কর্তৃপক্ষ জানায়, এ পর্যন্ত ২ হাজার ৪৪২ জন মারা গেছেন। আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৭৭ হাজার। দ্রুত সংক্রমিত হওয়ায় নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না পরিস্থিতি জানালেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখারও ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। তার এ প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

চীন, ইরান ও দক্ষিণ আফ্রিকার নাগরিকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে জর্ডান। এদিকে ডায়মন্ড প্রিন্সেসে আক্রান্ত আরো এক ব্যক্তি জাপানে মারা গেছেন। এ পর্যন্ত ৩২টি দেশে ছড়িয়েছে কভিন-১৯। উদ্বেগ জানিয়ে যেসব দেশের স্বাস্থ্যখাত দুর্বল ও অনুন্নত তাদের সহায়তায় জরুরি অর্থ চেয়েছে জাতিসংঘ।

Loading...