• আজ মঙ্গলবার, ১২ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৭ জুলাই, ২০২১ ৷

বগুড়ায় করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ


❏ রবিবার, মার্চ ১৫, ২০২০ দেশের খবর, রাজশাহী

সাখাওয়াত হোসেন জুম্মা, বগুড়া প্রতিনিধি: গোটা বিশ্বের মত বাংলাদেশেও নোভেল করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ায় বগুড়া জেলা পুলিশের আয়োজনে জনসচেতনতামুলক আলোচনাসভা, লিফলেট ও মাস্ক বিতরণ করা হয়।

রোববার (১৫ মার্চ) বেলা সাড়ে ১১টায় বগুড়ার শেরপুরের ধুনটমোড়স্থ ট্রাক টার্মিনাল এলাকায় বগুড়া জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বিপিএম এর সভাপতিত্বে নোভেল করোনা ভাইরাস (এন-২০১৯ কোভ) প্রতিরোধমুলক এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেরপুর সার্কেল মো. গাজিউর রহমান সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্য রাখেন বগুড়া-৫ শেরপুর-ধুনট নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ হাবিবর রহমান।

এ সময় শেরপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তার, উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) জামশেদ আলাম রানা, উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শাহ জামাল সিরাজী, শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবীর, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ, পৌরসভার প্যানেল মেয়র নাজমুল আলম খোকন, শেরপুর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক হারুন অর রশিদ, ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক মুহাঃ জাহিদ হোসেন, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ মকবুল হোসেন প্রমুখসহ পৌর কাউন্সিলরবৃন্দ, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার গণমাধ্যমকর্মী এবং সুধীজনরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে উপস্থিত জনসাধারণ, গণপরিবহনের চালক-যাত্রীদের মাঝে নোভেল করোনা ভাইরাস(এন-২০১৯ কোভ) সর্ম্পকে প্রতিরোধমুলক পরামর্শ, জনসচেতনতামুলক লিফলেট এবং প্রায় ২ হাজার মাস্ক বিতরণ করা হয়।

বগুড়ায় ২০ জন হোম কোয়ারান্টাইনে

বগুড়ায় নতুন করে বিদেশ ফেরত আরও ১১ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এ নিয়ে গত ১১ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত জেলায় মোট ২০ জনকে কোয়ারান্টাইনে নেওয়া হলো।

জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলায় সবচেয়ে বেশি আট জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

নন্দীগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তোফাজ্জল হোসেন মন্ডল জানান, শনিবার উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে নতুন করে ছয় জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ১২ মার্চ সৌদি আরব থেকে ওমরা হজ্ব করে আসা এক দম্পতিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

বগুড়ার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. সামির হোসেন মিশু জানান, বগুড়া সদর ও সোনাতলা উপজেলায় মোট পাঁচজন করে ১০ জন এবং ধুনট ও সারিয়াকান্দিতে একজন করে দু’জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, গত ১১ মার্চ থেকে ১৪ মার্চ পর্যন্ত বগুড়া জেলায় মোট ২০ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এর আগে ১৩ মার্চ পর্যন্ত জেলায় মোট নয় জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন