সংবাদ শিরোনাম

ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়, ত্যাগের মহিমায় জীবন সাজান: কাদেরআল্লাহ’র সঙ্গে শিরক, নিষিদ্ধ হলো তুরস্কের বিখ্যাত ‘ইভিল আই’ তাবিজক্ষমা চাইলেন এমপি একরামুলএবার এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রীবাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দনসৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়ক থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধারনন্দীগ্রামে আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতারশাহজাদপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তাদের অর্থায়নে পাকা ঘর পাচ্ছে প্রতিবন্ধী দম্পতিবাংলাদেশে পরীক্ষা চালানোর জন্য ২০ লাখ টিকা দিয়েছে ভারত: রিজভীফরিদপুরের ভাঙ্গায় ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ: ২ স্কুলছাত্র নিহত

  • আজ ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

টানা দেড় মাস জামাতে নামাজ পড়ে সাইকেল পাচ্ছে ৪৩ কিশোর

◷ ৩:২০ অপরাহ্ন ৷ বৃহস্পতিবার, মার্চ ২৬, ২০২০ ইসলাম
oik

ইসলাম ডেস্ক-মসজিদে টানা দেড় মাস জামাতে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করে সাইকেল উপহার পাচ্ছে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীর ৪৩ শিশু কিশোর।

আগামীকাল শুক্রবার তাদের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, শিশু-কিশোরদের জামাতে নামাজ আদায়ে উৎসাহী করতে ব্যতিক্রমী এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেন সোনাইমুড়ী হামিদিয়া কামিল মাদ্রাসা মসজিদের খতিব মুফতি হুমায়ূন কবির। এতে অর্থায়ন করেছেন স্থানীয় বাসিন্দা ও সমাজসেবক নুরুল ইসলাম নুর।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই প্রতিযোগিতা চলে ২০ মার্চ পর্যন্ত। প্রথম পর্বে ৭০ কিশোর নিবন্ধন করে। তাদের মধ্যে ৪৩ জন টানা ৪৫ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতে আদায় করে।

সে অনুযায়ী প্রতিজন একটি করে বাইসাইকেল পাবেন। তবে নিবন্ধনকারী যারা নিয়মিত জামাতে নামাজ আদায় করতে পারেনি তারাও পাবে সান্তনা পুরস্কার।

নিবন্ধনকারী এক কিশোর বলেন, ‘আমরা এতদিন নামাজ আদায় করেছি। একসঙ্গে সবাই মসজিদে এসেছি। আমার সঙ্গে অনেকের বন্ধুত্বও গড়ে উঠেছে। পুরস্কার হাতে পেলে আরও ভালো লাগবে। তবে এখন থেকে নিয়মিত মসজিদে আসব ইনশাল্লাহ।’

মসজিদের খতিব মুফতি হুমায়ুন কবির বলেন, ‘আমার দীর্ঘদিনের ইচ্ছা ছিল শিশু কিশোরদের মসজিদমুখি করার লক্ষ্যে কিছু একটা করা। শেষ পর্যন্ত সবার প্রচেষ্টায় এমন একটি উদ্যোগ বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হয়েছি। এর ফলে একটি ছেলেও যদি পরবর্তী জীবনে নামাজ আঁকড়ে ধরে তাহলে আমাদের উদ্যোগ সার্থক হবে।’

৪৩ কিশোরকে আগামীকাল শুক্রবার সাইকেল উপহার দেয়া হবে। তবে তাদের মধ্যে পরিবর্তন এসেছে কিনা তা আগামী এক সপ্তাহ নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করবে মসজিদ কর্তৃপক্ষ।