সংবাদ শিরোনাম
করোনায় ঢাকার সাবেক এমপি মকবুলের মৃত্যু | বরিশালে ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্তদের ঘর মেরামত করে দিলেন সেনাবাহিনী | এবার প্রবাসীদের বাড়িতে ঈদ উপহার পাঠালেন মাশরাফি | ইতালিতে ঈদুল ফিতর উদযাপন করলেন ২৫ লাখ মুসল্লি | করোনাকালে “এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট” হিসেবে দায়িত্ব পালনের গল্প | ঠাকুরগাঁওয়ে কর্মহীনদের ঈদ উপহার দিল সেনাবাহিনী | করোনা চিকিৎসায় ১৩টি হাসপাতালে রেমডেসিভির সরবরাহ শুরু | কৃষকদের ধান কেটে দেওয়ায় ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন | জীবিকার স্বার্থে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চালু করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী | “পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সরকারি সহায়তা অব্যাহত থাকবে” |
  • আজ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনার ভয়ে ঘরবন্দী জনপ্রতিনিধিরা, অসহায়-দুস্থদের পাশে নেই কেউ

৯:৪৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, মার্চ ২৮, ২০২০ দেশের খবর, রাজশাহী

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি- করোনাভাইরাস আতঙ্কে স্বেচ্ছায় গৃহবন্দী অবস্থায় রয়েছেন পাবনা-৩ এলাকার প্রায় সকল নেতা ও জনপ্রতিনিধিরাও।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন এবং জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের পূর্বে দলীয় মনোনয়ন পেতে কিংবা দলের জন্য ভোট প্রার্থনা করতে জনগনের দোড় গোড়ায় প্রধান দুই দলের অন্তত তিন ডজন রাজনৈতিক নেতা ঘুরে বেড়িয়েছেন।

কিন্তু দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে ঘরে বন্দী বেকার, দুস্থ অসহায় মানুষদের পাশে নেই তারা। ভাইরাস সংক্রমনের ভয়ে নিজেরা বন্দী থাকছেন এবং তাদের অনুসারী নেতাদেরও ঘরে থাকতে বলছেন।

বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে পাবনা-৩ (চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর) আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) সহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নবীন-প্রবীন মিলে প্রায় তিন ডজন নেতা তৎপর ছিলেন। নির্বাচনের পরে অধিকাংশ নেতা ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। কিছু নেতা এলাকাতেই অবস্থান করছেন। তারা ব্যবসা করছেন রাজনীতি করছেন অর্থ উপার্জন করছেন। কিন্তু এই দুঃসময়ে কোন নেতাই বাইরে নেই। ঘরবন্দী হয়ে পড়েছেন তারা। গরীব দিনমজুর, দুস্থ্য অসহায় মানুষের পাশে না থাকায় হতবম্ভ হয়েছেন সচেতন মানুষ।

বর্তমান সংসদ আলহাজ্ব মকবুল হোসেন এমপি ছাড়াও বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল আলীম, আলহাজ্ব আব্দুল হামিদ মাস্টার (বর্তমান চাটমোহর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান), চাটমোহর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন সাখো, অ্যাডভোকেট শাহ আলম, ভাঙ্গুড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বাকি বিল্লাহ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আ.ফ.ম আব্দুর রহিম পাকন, আবুল কালাম আজাদ, আতিকুর রহমান আতিক, খলিলুর রহমান সরকার, খ.ম কামরুজ্জামান মাজেদ, আলী আশরাফুল কবীর, ডা. মোঃ গোলজার হোসেন ও মো. রবিউল করিম সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী হিসেবে ছুটেছেন ভোটারের দারে দারে।

বিএনপি নেতাদের মধ্যে সাবেক এমপি আলহাজ্ব কে, এম আনোয়ারুল ইসলাম ছাড়াও এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) ফখরুল আযম রনি, অ্যাডভোকেট মাসুদ খোন্দকার, জহুরুল ইসলাম বকুল, সাংবাদিক জহুরুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান হাসাদুল ইসলাম হীরা, হাসানুল ইসলাম রাজা (পরে স্বতন্ত্র প্রার্থী), আরিফা সুলতানা রুমা, আলহাজ্ব রাজিউল হাসান বাবু, সাবেক সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল রবিউল করিম ভোটারের দারে দারে ছুটেছেন ভোটের আশায়। বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা খাইরুল আলম বিগত নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন।

পাবনা-৩ এলাকার তিনটি পৌর এলাকা, তিনজন পৌর চেয়ারম্যান, তিনজন উপজেলা চেয়ারম্যান, তিনজন ভাইস চেয়ারম্যান, তিনজন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ ২৩ জন ইউপি চেয়রম্যান ভোটারের ভোট নিয়ে নির্বাচিত হলেও দু-চার জন ব্যতীত সবাই এখন স্বেচ্ছায় গৃহে অলস সময় কাটাচ্ছেন।