🕓 সংবাদ শিরোনাম

সরকারি হাসপাতালে ডাক্তারদের ডিউটি ফাঁকিতে ভোগান্তী পোহাচ্ছে সাধারণ রোগীরাসালথায় আম গাছ থেকে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার বোয়ালমারীতে সংঘর্ষে মৃত্যুর ঘটনায় ২৯ জনের নামে মামলা মাগুরায় অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ক্যানোলাসহ বিভিন্ন উপকরণ বিতরণফুলবাড়ীতে প্রচন্ড তাপদাহে পল্লী বিদ্যুতের লুকোচুরি, জনজীবন অতিষ্ঠসোনারগাঁওয়ে করোনা শনাক্তের হার শতভাগ!ভাঙ্গায় রেল প্রজেক্টের সামগ্রী চুরির ঘটনায় গ্রেফতার ৫লকডাউনের চতুর্থ দিনে ঢাকায় গ্রেফতার ৫৬৬ জনঢাকা ফেরত ৩৭মণ ওজনের কালো মানিক নিয়ে বিপাকে ত্রিশালের সুমনএক দিনে রেকর্ড ১২৩ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি

  • আজ সোমবার, ১১ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৬ জুলাই, ২০২১ ৷

বাংলাদেশকে ৩ হাজার কোটি টাকা অনুদান দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক

bank
❏ বুধবার, এপ্রিল ১, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ কক্সবাজারের স্থানীয় জনগোষ্ঠী ও আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য, সামাজিক নিরাপত্তাসহ জীবনমান উন্নয়নের জন্য ২ হাজার ৯৭৫ কোটি টাকা (৩৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) অনুদান অনুমোদন দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। বুধবার বিশ্বব্যাংকের বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তিনটি প্রকল্পে এ অর্থ খরচ করার জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। কক্সবাজারের স্বাস্থ্য ও লিঙ্গ নির্বিশেষে সহায়তা প্রকল্পে ১৫ কোটি ডলার, মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের জরুরি সহায়তা প্রকল্পে ১০ কোটি ডলার, স্থানীয় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য বিদ্যমান সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে ১০ কোটি ডলার দেওয়া হবে।

বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন বলেন, বাংলাদেশ প্রায় ১.১ মিলিয়ন রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে বিশাল উদারতা দেখিয়েছে। আশ্রয় পাওয়া এই জনগোষ্ঠী টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলার স্থানীয় জনসংখ্যার চেয়ে প্রায় তিনগুণ বেশি। স্বাভাবিকভাবেই এটি বিদ্যমান অবকাঠামো এবং সমাজসেবা সরবরাহের ওপর প্রচুর পরিমাণে চাপ সৃষ্টি করছে। এবং স্বাস্থ্য ও দুর্যোগ ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলেছে।

তিনি বলেন, এই অনুদান দেশের পরিষেবা সরবরাহের ক্ষমতা আরও জোরদার করবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রেও স্থিতি বাড়িয়ে তুলবে।

কক্সবাজার জেলার জন্য ১৫ কোটি ডলারের হেলথ এবং জেন্ডার সহায়তা প্রকল্পটি রোহিঙ্গাসহ তিন দশমিক ছয় মিলিয়ন মানুষকে স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং পরিবার পরিকল্পনা পরিষেবায় অ্যাক্সেস করতে সক্ষম করবে এবং প্রতিরোধমূলক ও প্রতিক্রিয়াশীল পরিষেবার মাধ্যমে লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা মোকাবিলা করতে সক্ষম করবে।

প্রকল্পটি উন্নত পাবলিক অবকাঠামোতে স্থানীয় লোকসহ প্রায় সাত লাখ ৮০ হাজার ৮০০ মানুষকে উপকৃত করবে। এরমধ্যে রয়েছে তিন লাখ ৬৫ হাজার ৮০০ মানুষের জন্য সুপেয় পানির ব্যবস্থা। এক লাখ ৭১ হাজার ৮০০ জনের জন্য আরও ভালো স্যানিটেশন।

এছাড়া জেলাটির দরিদ্র মোকাবিলায় আরেকটি প্রকল্পের আওতায় খরচ করা হবে ১০ কোটি ডলার। দারিদ্র্য নিরসন কর্মসংস্থান জেনারেশন প্রোগ্রাম ব্যবহার করে হোস্ট সম্প্রদায়ের দরিদ্র ও দুর্বল পরিবারগুলোকে জীবিকা এবং আয়ের সহায়তা দেয়া হবে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন