সংবাদ শিরোনাম

বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে পরকীয়া: তরুণীর ‘সর্বস্ব কেড়ে নিলেন স্কুল শিক্ষক’মহাসড়ক যানশূন্য, শিমুলিয়ায় ফেরি পারাপার বন্ধ‘তালা ভেঙ্গে মসজিদে তারাবি পড়ার চেষ্টা্’‌, পুলিশের বাধায় সংঘর্ষে মুসল্লিরা‘লঘু পাপে গুরু দণ্ড’; তিনটি মুরগি চুরির দায়ে দেড়লাখ টাকার জরিমানা চার তরুণের!কুড়িগ্রামের সবগুলো নদ-নদী শুকিয়ে গেছে, হুমকীতে জীব-বৈচিত্রহেফাজতের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা গ্রেপ্তারমধুখালীতে বান্ধবীর সহায়তায় অচেতন করে দফায় দফায় ধর্ষণের শিকার নারী!বাসস্ট্যান্ডে প্রকাশ্যে চায়ের স্টলে ইতালি প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যাগোবিন্দগঞ্জে মর্মান্তিক সড়ক দূঘর্টনায় স্কুল শিক্ষকসহ একই পরিবারের ৪ জন নিহতময়মনসিংহে ব্রহ্মপুত্র নদের পানিতে ডুবে মারা গেলো ৩ শিশু

  • আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কোটালীপাড়ায় নিজ উদ্যোগে অর্ধশতাধিক বাড়ি ‘লকডাউন’

৫:১৬ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, এপ্রিল ৭, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর

এইচ এম মেহেদী হাসানাত, স্টাফ রিপোর্টার, গোপালগঞ্জ- বাড়ির আসা যাওয়া পথের সামনে বাঁশের ব্যারিকেড দেয়া। তাতে একটি সাইবোর্ড ও একটি লাল পতাকা ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে। সাইনবোর্ডটিতে লেখা রয়েছে, বাড়ি লকডাউন, দয়া করে কেউ আসা যাওয়া করবেন না। সৌজন্যে ভিপি লিটন শেখ।

শুধু ভিপি লিটননের বাড়িই নয়, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় এমনই বাঁশের ব্যারিকেড ও সাইনবোর্ড রয়েছে অর্ধশতাধিক বাড়িতে। প্রশাসন এখনও গোপালগঞ্জ লকডাউন না করলেও কোটালীপাড়া উপজেলার তাড়াশী গ্রামে করোনা ভাইরাস আতঙ্কে নিজেদের উদ্যোগেই নিজেদের অর্ধশতাধিক বাড়ি লকডাউন করেছে।

জানা গেছে, করোনা ভাইরাস রোধে গোপালগঞ্জের বিভিন্ন হাট-বাজার. মার্কেট ও দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সচেতনতা সৃষ্টি করতে নানাভাবে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে প্রশাসন। এতে সেনাবাহিনীও সহযোগিতা করছে।

তবে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস নিয়ে অধিকাংশ জনগনের মধ্যে এখনও তেমন একটা আতঙ্ক দেখা যায়নি। ফলে বিভিন্ন স্থানে অবাধে ঘোরাফেরা করছে সাধারন মানুষ। তারপরেও জেলা বা উপজেলা প্রশাসন লকডাউন ঘোষণা করেনি।

তাই করোনা রোধে নিজেদের উদ্যোগে কোটালীপাড়া উপজেলার তাড়াশী গ্রামের তিনটি পয়েন্টে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে অর্ধ শতাধিক বাড়ি নিজেরাই লকডাউন করে দেয়।

যুবলীগ নেতা কোটালীপাড়া শেখ লুৎফর রহমান ডিগ্রী কলেজের সাবেক ভিপি লিটন শেখের নেতৃত্বে এসব বাড়ি লকডাউন করা হয়। নিজ উদ্যোগে বাড়ি লকডাউন করায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই নিজ উদ্যোগে বাড়ি বা এলাকা লকডাউন করার কথা ভাবছেন।

লকডাউন হওয়া পরিবারের সদস্য ইস্রাফিল শেখ বলেন, আমি ও আমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আতঙ্কে রয়েছি। সবখানেই আবাধে ঘোরাফেরা চলছে। যে কারো মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে। সেজন্য আমার বাড়ি আমি নিজে লকডাউন করে দিয়েছি।

একই গ্রামের সাগর শেখ বলেন, বাড়ির পরিবারের সদস্য রয়েছে। যেভাবে করোনা ছড়াচ্ছে এতে আমরা আতঙ্কিত। যে কারনে লিটন শেখের সাথে একাত্মতা জানিয়ে আমার বাড়ি লকডাউন করেছি।

জামাল শেখ ও ওহাব শেখ বলেন, যেভাবে গ্রামের লোকজন বাইরে ঘোরাফেরা করছে তাতে প্রশাসনের উচিত ছিল লকডাউন ঘোষণা করা। কিন্তু প্রশাসন তা না করায় নিজ উদ্যোগে আমার বাড়ি লকডাউন করেছি। নিজ পরিবারের সদস্যসহ আমার বাড়িতে সবাইকে আসা যাওয়ার জন্য নিষেধ করেছি।

এ ব্যাপারে যুবলীগ নেতা কোটালীপাড়া শেখ লুৎফর রহমান ডিগ্রী কলেজের সাবেক ভিপি লিটন শেখ বলেন, করোনা ভাইরাসে আমরা সবাই আতংকিত হলেও সাধারন মানুষের মাঝে কোন প্রভাব পরেনি। এতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পরার আশংকা করছি।যে কারনে আমাদের এলাকার তিনটি পয়েন্টে বাঁশের বেরিকেড দিয়ে লাল পতাকা ও সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দিয়ে অর্ধশতাধিক বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছে। সেই সাথে সকলকে আসা-যাওয়ার জন্য নিষেধ করেছি।

কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মাহফুজুর রহমান বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে এখনো কোন এলাকা লকডাউন করার কোন পরিকল্পনা নেই। তবে তারা এটা নিজেদের উদ্যোগে করেছেন। এ বিষয়টি আমাদের এখনো তারা জানায়নি। মানুষ যাতে ঘরে থাকে সে বিষয়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি আমরা। বিভিন্ন স্থানে মাইকিং করে সচেতন করা হচ্ছে।