খাদ্য সহায়তা চেয়ে ১১০ টি পরিবারের আকুতি কারো কাছেই পৌঁছাল না!

❏ শনিবার, এপ্রিল ১১, ২০২০ দেশের খবর

ফয়সাল শামীম, ষ্টাফ রিপোর্টার:খাদ্য সহায়তা চেয়ে করুন আকুতি ও কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বারাবর আবেদন করেও মেলেনি কোন খাদ্য সহায়তা।

ফলে না খেয়েই চরম কষ্টে দিন কাটাচ্ছে কুড়িগ্রামে নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের দেবেত্তর,রসুলপুর ও সুখানদিঘি গ্রামের ১১০ টি পরিবারের মানুষজন।

এ অবস্থায় তারা জরুরী ভিত্তিতে সমাজের হৃদয়বান ’বিত্তবানদের কাছে খাদ্য সহায়তা চেয়ে আকুল আবেদন করেছে।

উল্লেখ্য, গত ৯ ই এপ্রিল ২০২০ পেটের জ্বালা সহ্য করতে না পেয়ে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের সুখানদিঘী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে একত্র হয়ে জরুরী খাদ্য সহায়তা চেয়ে সরকার অথবা বিত্তবান হৃদয়বান মানুষের কাছে খাদ্য সহায়তার আকুতি জানান ওই গ্রামের ১১০ টি পরিবার।

পরে ওই ‍দিনই তারা স্থানীয় প্রভাষক লিটন আহমেদের নেত্রীত্বে নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বারাবর জরুরী খাদ্য সহায়তা চেয়ে লিখিত আবেদন করেন। এ সময় সেখানে উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা জামান উপস্থিত ছিলেন।

কিন্তু আবেদনের পরেও আজ পর্যন্ত তারা কোন খাদ্য সহায়তা পাননি।

এই ১১০ টি পরিবারের সকলের অভিযোগ তারা এ পর্যন্ত সরকারী বা বেসরকারী কোন খাদ্য সহায়তা পাননি।

কথা হলে ভুক্তভোগি আমিনুল পাকওয়ানী বলেন, আজ প্রায় ১৫ দিন থেকে ঘরে বসে আছি কোন কাম কাজ নেই ঘরে চাল নেই তাই বাধ্য হয়ে আমরা সকলে মিলে এখানে এসেছি।

খাদ্য সহায়তা চাওয়া ভুক্তভোগি রিকসা চালক ফাকের আলী বলেন, আমাদের কোন কাজ নো থাকায় একপ্রকার না খেয়েই আছি তবুও আমাদের পাশে চেয়ারম্যান,মেম্বার,এমপি কেউ একমুঠো চাল নিয়ে দাড়াল না। ছোট ছোট বাচ্চাগুলো না খেয়ে আছে আমরা খুব তাড়াতাড়ি খাবার চাই।

আর এক ভুক্তভোগি সুফিয়া বেগম কাঁদতে কাঁদতে বলেন, আমরা কিছু বুঝি না আমরা বাঁচার জন্য খাবার চাই। আমরা সরকার এবং বড়লোক মানুষের কাছে খাবার সাহায্য চাই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাগেশ্বরী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, আমরা ওই এলাকা থেকে অনেকগুলি ভোটার আইডির ফটোকপি পেয়েছি। আমরা আগে গোটা উপজেলার তালিকা করবো এরপর পর্যায়ক্রমে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের সাথে সমন্বয় করে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে কথা হলে ওই এলাকার প্রভাষক লিটন আহমেদ বলেন, মানুষগুলো খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছে। কারও ঘরেই খাবার নেই। গত ৩ দিন আগে আবেদন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বারাবর দিয়ে এসেছি। আবেদন গ্রহনের সময় সেখানে উপজেলা চেয়ারম্যানও ছিল কিন্তু এখনওে ১১০ টি পরিবারের কেউ কোন খাদ্য সহায়তা পাননি। তাই তিনি সরকারীসহ বেসরকারী অথবা সমাজের হৃদয়বান বিত্তবানদের খুব দ্রুত তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসার জন্য অনুরোধ করেন।

এই ১১০ টি পরিবারের আরও তথ্য জানতে চাইলে ও ভিডিও কলে কথা বলতে চাইলে সাংবাদিক ও প্রভাষক ফয়সাল শামীম-০১৭১৩২০০০৯১।