🕓 সংবাদ শিরোনাম

শেরপুরে পৃথক ঘটনায় একদিনে ৭ জনের মৃত্যুএক বিয়ে করে দ্বিতীয় বিয়ের জন্যে বড়যাত্রীসহ খুলনা গেল যুবক!আমার মৃত্যুর জন্য রনি দায়ী! চিরকুট লিখে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যাইসরাইলীয় আগ্রাসনের  বিরুদ্ধে ইসলামী বিশ্বের নিন্দার নেতৃত্বে সৌদি আরবত্রিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুতে নিহতের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতমকলাপাড়ায় এক সন্তানের জননীর মরদেহ উদ্ধারটাঙ্গাইলে কৃষক শুকুর মাহমুদ হত্যা মামলায় গ্রেফতার-১ফরিদপুরে নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিতজামালপুরে ঘর মেরামতের সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে তিন জনের মৃত্যুশেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে বিশ্বের বিস্ময় এখন বাংলাদেশ: কাদের

  • আজ সোমবার, ৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৭ মে, ২০২১ ৷

৫৫০০ মানুষের মৃত্যুর জন্য বরিস জনসন দায়ী: ব্রিটিশ চিকিৎসক


❏ রবিবার, এপ্রিল ১২, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ করোনায় প্রাণহানি ও অসুস্থদের পরিসংখ্যান রাখা সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, এখন পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৮ হাজার ৯৯১ জন। মারা গেছেন ৯ হাজার ৮৭৫ জন। কিন্তু এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে ফিরেছেন মাত্র ৩৪৪ জন। তবে আক্রান্তদের সুস্থ করে তুলতে কোনো ত্রুটি করছেন না সে দেশের চিকিৎসকরা। রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন তারা।

জানা গেছে, ইতিমধ্যে অনেক হাসপাতালে ধারণক্ষমতার বাইরে চলে গেছে রোগীর সংখ্যা। পরে আসা রোগীদের পরামর্শ দিয়ে বাড়িতে ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। শুধু গুরুতরদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। দেশে করোনা রোগীর সংখ্যার বিস্ফোরণ ও স্বাস্থ্যসেবার এমন দুরবস্থায় প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং তার দল কনজারভেটিভ পার্টিকে দায়ী করেছেন অ্যান্ড্রু মেয়ারসন নামে যুক্তরাজ্যের এক নবীন চিকিৎসক।

ওরচেস্টারশায়ার রয়্যাল হাসপাতালে করোনা রোগীর সেবায় নিয়োজিত তিনি। বরিস জনসনকে উদ্দেশ্য করে বলা অ্যান্ড্রু মেয়ারসনের সেই বক্তব্য গত শুক্রবার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান প্রকাশ করেছে।

পাঠকদের উদ্দেশে তার সেই বক্তব্য তুলে ধরা হলো- ‘প্রিয় বরিস জনসন, রাজনীতিতে আজকাল যা চলছে, চিকিৎসায় ঠিক তার বিপরীত ঘটছে। এমন এক পরিস্থিতিতে পড়েছি, যাকে ‘দৃষ্টান্তহীন ঘটনা’ বলা যায়। এমন পরিস্থিতি তখনই তৈরি হয়, যখন নানা প্রটোকলের কারণে রোগীকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়। দৃষ্টান্তহীন এসব ঘটনা এতটাই ভয়াবহ বিপর্যয় ডেকে আনে যে, রোগীর সেবায় জড়িত বেশিরভাগ চিকিৎসক তাদের বাকি কর্মজীবনে এর ভার বহন করবেন।

অনেক নবীন চিকিৎসক দুর্ঘটনা ও জরুরি বিভাগে কর্মিস্বল্পতা নিয়েও টানা কাজ করছেন। আমি দেখেছি অত্যধিক চাপে থাকাবস্থার ফল কী হয়। আমার বিশ্বাস, এটিকেও ‘দৃষ্টান্তহীন ঘটনা’ হিসেবে লেখা উচিত। ২০১৬ সাল থেকে এক ইংল্যান্ডেই অন্তত ৫ হাজার ৫০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হতে দীর্ঘসময় অপেক্ষা করার ফলে মারা গেছেন। এ দৃষ্টিকোণ থেকে ১৯৭০ সাল থেকে যুক্তরাজ্যে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ব্যক্তিদের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ। আমাদের তো ক্ষোভপ্রকাশ করাই উচিত!’

অ্যান্ড্রু মেয়ারসন এরপর লেখেন– ‘প্রধানমন্ত্রী, আপনি কি দয়া করে একমুহূর্তের জন্য নিজেকে একজন ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) প্যারামেডিক, চিকিৎসক বা নার্স হিসেবে কল্পনা করতে পারেন? আমরা করিডোরে ট্রলিতে রোগীদের মারা যেতে দেখছি। দয়া করে মাত্র একমুহূর্তের জন্য এনএইচএসে অপর্যাপ্ত বরাদ্দের মানবিক পরিণতি সম্পর্কে ভাবুন। এনএইচএস মারাত্মকভাবে তহবিল ও কর্মিস্বল্পতায় ভুগছে। এর জন্য আপনি ও আপনার সরকার দায়ী। প্রধানমন্ত্রী আপনার অবহেলায় মানুষের মৃত্যু ঘটছে।’

যুক্তরাজ্যের বর্তমান স্বাস্থ্যসেবা খাত নিয়ে অ্যান্ড্রু বলেন, ‘আপনি ও আপনার দল স্বাস্থ্যসেবা খাতে কতটা ব্যর্থ হয়েছেন, যা আমরা এনএইচএস হাসপাতালে প্রতিদিনই দেখছি। ইংল্যান্ডে ৪০ হাজার নার্স ও ১০ হাজার চিকিৎসক কম রয়েছে। এঅ্যান্ডইতে অপেক্ষা করার হার এনএইচএসের ইতিহাসে সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় আছে। ক্যান্সারের রোগীদের আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

সামাজিক সেবা সেভাবে হচ্ছে না। মানসিক সেবা তো পাওয়াই যায় না। প্রধানমন্ত্রী, এনএইচএস আপনার হাতে নিরাপদ নয়। আপনার এবং আপনার দলের গত এক দশকের অবহেলা প্রায় ৫ হাজার ৫০০ রোগীর মৃত্যুতে অবদান রেখেছে। আপনি যদি আমার মতো নবীন চিকিৎসক হতেন, তবে আপনার লাইসেন্সটি এখন বাতিল করে দেয়া হতো এবং আপনাকে কারাগারে পাঠানো হতো। এনএইচএস হাসপাতালে আমাদের কী প্রয়োজন তা নিয়ে আপনি আর বক্তৃতা দেয়ার উপযুক্ত নন।’

এর পর অ্যান্ড্রু বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী, আপনি যদি এই সমস্যার উন্নয়ন চান, তবে লুকিয়ে লুকিয়ে ছবি তুলতে আমাদের হাসপাতালে আসা বন্ধ করুন।