🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৮ মে, ২০২১ ৷

ধর্মীয় নেতাদের জমায়েত পরিহারের আহ্বান জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

jahid
❏ রবিবার, এপ্রিল ১৯, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ধর্মীয় নেতাদের জমায়েত পরিহার করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে এ ধরনের জমায়েত খুবই ক্ষতিকর।

রোববার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ সব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

জাহিদ মালেক বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জানাযায় লোকসমাগম ঠেকাতে প্রশাসন পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। প্রশাসন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি। এই সময়ে এ ধরনের জমায়েত খুবই ক্ষতি হয়েছে। আশঙ্কা করি, অনেক লোক এখান থেকে হয়তো বা আক্রান্ত হয়েছে। এই ধরনের দায়িত্বহীন কাজ হওয়া উচিত হয়নি। এখানে প্রশাসন নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হয়েছে।’

বিভিন্ন জেলায় আক্রান্তদের বিশ্লেষণে জানা যায়, সবাই ঢাকা এবং নারায়ণগঞ্জ থেকে গিয়েছেন জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এরাই মূলত সারাদেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়েছে। এখনও তারা বিভিন্নভাবে, বিভিন্ন উপায়ে এই কাজ করছে।’ এ ক্ষেত্রে প্রশাসনের বিশেষ পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘গত কয়েক দিন ধরে করোনা পজিটিভ ৩০০ এর মধ্যে রয়েছে। যদি অতিরিক্ত না বাড়ে তাহলে আমরা ভাগ্যবান। আর যদি অনেক বাড়তে থাকে তাহলে এটা আশঙ্কার কারণ। প্রথমত, আমরা যেভাবে আশা করছি সেভাবে লকডাউন কাজ করছে না। দ্বিতীয়ত, লোকজন আক্রান্ত এলাকা থেকে ভালো এলাকায় যাচ্ছেন। নতুন লোক আক্রান্ত হচ্ছে। অর্থাৎ, কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বেড়ে যাচ্ছে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আক্রান্তের সপ্তম সপ্তাহে আছি। এ সময়ে আমেরিকা ও ইউরোপে লাখ লাখ লোক করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল এবং হাজার হাজার লোকের মৃত্যু হয়েছে। আমরা স্বাস্থ্য নির্দেশনাবলি না মেনে চললে আমাদেরও ফলাফল ভালো হবে না। তাই অনুরোধ করব, স্বাস্থ্যবিধিমালাগুলো মেনে চলুন।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিশেষজ্ঞরা বলেন, শতকরা ৮০ ভাগ রোগী এমনিতেই সেরে উঠেন। ১৫ ভাগ রোগীরা হাসপাতালে পর্যবেক্ষণে থাকেন ও সামান্য কিছুর পরিচর্যা লাগে। বাকি ৫ ভাগ রোগীর চিকিৎসা লাগে আর কিছু রোগীর আইসিইউ, ভেন্টিলেটরে চলে যান।’

উল্লেখ্য মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৯১ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৩১২ জন। ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৪৫৬ জনে।