🕓 সংবাদ শিরোনাম

কারাগারে বাড়তি নিরাপত্তায় বাবুল আক্তারসাংবাদিক রোজিনাকে হয়রানি ও হেনস্থার প্রতিবাদে রাঙামাটি প্রেসক্লাবের মানববন্ধনসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নির্যাতনের প্রতিবাদে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের মানববন্ধনঝালকাঠিতে জমি নিয়ে বিরোধে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা,আটক-২মাত্র ২০ ঘন্টায় ১০ লক্ষ দর্শক পেল“ তাকে ভালোবাসা বলে” নাটকটিবিয়ের কথা বলে প্রেমিকাকে তুলে নিয়ে রাতভর ধর্ষণভারতে করোনায় একদিনে মারা গেলেন ৫০ চিকিৎসকদেশে বিশেষ অভিযান চালাবে ইন্টারপোলসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নেওয়া হলো আদালতেতুমুল সমালোচনার মুখে ‘জেরুজালেম প্রেয়ার টিম’পেজ সরিয়ে নিল ফেসবুক কর্তৃপক্ষ

  • আজ মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৮ মে, ২০২১ ৷

টাঙ্গাইলে আইসোলেশন ওয়ার্ডের ছবি ধারণ, দুই সাংবাদিকের বাড়ি লকডাউন


❏ সোমবার, এপ্রিল ২০, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর

অন্তু দাস হৃদয়, স্টাফ রিপোটার: টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে প্রবেশ করায় বেসরকারি একটি টেলিভিশন সময় চ্যানেলের সাংবাদিক ও ক্যামেরা পারসনের বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করেছে প্রশাসন। তাদের বাড়ি শহরের কাগমারা ও এসপি লেক সংলগ্ন ধুলের চর এলাকায়।

গতকাল রোববার রাতে টাঙ্গাইল সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) উপম ফারিসা বাড়ি দুটি লকডাউন করেন। এ সময় তিনি ওই দুই বাড়িতে লাল পতাকা টানিয়ে দেন এবং আশপাশের সকলকে সতর্ক করেন।

জানা যায়, রোববার বিকেলে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে থাকা পাঁচজনকে চিকিৎসা দেয়ার দৃশ্য ধারণ করতে যান বেসরকারি ওই টেলিভিশনের ক্যামেরাপারসন। এ সময় রিপোর্টার ওই হাসপাতালেই অবস্থান করছিলেন। খবর পেয়ে প্রশাসন রাতেই ওই বাড়ি দুটি লকডাউন ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে সময় চ্যানেলের রিপোর্টার বলেন, বিকেলে ক্যামেরাপারসন পিপিই পরে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে আইসোলেশন ওয়ার্ডের ছবি ধারণ করেন। এ সময় আমি হাসপাতালে অবস্থান করছিলাম। পরে তাকে নিয়ে আমি মোটরসাইকেলযোগে স্থানীয় এক দৈনিক পত্রিকার অফিসে যাই। সেখান থেকে নিউজ পাঠিয়ে আমরা বাড়ি চলে আসি। রাতে প্রশাসন এসে আমাদের দুজনের বাড়ি লকডাউন করে গেছে।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) উপম ফারিসা সময়ের কন্ঠস্বর’কে জানান, করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে প্রবেশ করা ও করোনা রোগীদের সংস্পর্শে আসায় ওই দুই সংবাদকর্মীর বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। এ ছাড়া তাদের দুজনকে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।