• আজ রবিবার,২৬ বৈশাখ, ১৪২৮ ৷ ৯ মে, ২০২১, রাত ১০:৩৫

‘করোনা চিকিৎসায় ভিআইপিদের জন্য আলাদা হাসপাতাল হচ্ছে না’

❏ বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৩, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- কোনো ভিআইপি নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হলে তার চিকিৎসা আলাদা হাসপাতালে হবে— এমন তথ্য অস্বীকার করেছে সরকারের তথ্য ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দেশের সব নাগরিকের জন্য সমান ব্যবস্থা থাকবে। ভিআইপি বলে কেউ আলাদা সুবিধা পাবেন না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে সবার জন্য সমান স্বাস্থ্যব্যবস্থা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

সরকারের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা সুরথ কুমার সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, ভিআইপিদের জন্য আলাদা চিকিৎসা ব্যবস্থা থাকবে— এরকম খবর গণমাধ্যমে এসেছে। এ তথ্য সঠিক নয় এবং তথ্যগুলো অতিরঞ্জিত। ভিআইপিদের করোনা চিকিৎসার জন্য আলাদা কোনো সুবিধা তৈরি করা হয়নি। এমন কোনো পরিকল্পনা সরকারের নেই।

প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব হিসেবে আশরাফুল আলম খোকন বলেন, ভিআইপিদের আলাদাভাবে চিকিৎসা দেওয়ার খবর প্রকাশ পেলে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি নিশ্চিত করেছেন, এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা সরকারের ছিল না, এখনো নেই এবং ভবিষ্যতেও থাকবে না।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসা করাতে গিয়ে নিজেই কখনো ভিআইপি সুবিধা নেন না। গত জানুয়ারিতেও তিনি রাজধানীর জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চোখের চিকিৎসা নিয়েছেন ১০ টাকা দিয়ে টিকেট কেটে। প্রধানমন্ত্রী নিজেই সবার সমান চিকিৎসার কথা বলেন সবসময়।

এদিকে ভিআইপিদের জন্য আলাদা হাসপাতাল তৈরি হচ্ছে- এমন খবর অস্বীকার করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকও। গতকাল বুধবার রাতে একটি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘সবার চিকিৎসা সব হাসপাতালে হবে। এখানে ধনী-গরিব, সাধারণ-ভিআইপি বলে কিছু নেই।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যেসব হাসপাতালে কোভিড-১৯ চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি সবার চিকিৎসা সেখানেই হবে। মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে এটা আমি দায়িত্ব নিয়ে বলছি। আমরা কোনো মন্ত্রী, এমপি বা কোনো শিল্পপতির জন্য আলাদা হাসপাতাল প্রস্তুত করার কথা বলিনি। এরপরও বিষয়টি নিয়ে যদি কেউ কিছু বলে থাকেন তাহলে তিনি তার নিজ দায়িত্বে বলেছেন। এটা মন্ত্রণালয়ের অবস্থান নয়।’

বাংলাদেশে অবস্থানকারী বিদেশিদের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আলাদা একটি হাসপাতাল ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করেছিল বলে জানিয়েছেন জাহিদ মালেক। তবে এখন অন্যান্য রোগীদের পাশাপাশি বিদেশিরা শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসা নেবেন বলে জানান তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের কাছে অনুরোধ করেছিল, বিদেশি কেউ আক্রান্ত হলে কোথায় চিকিৎসা করাবে, তাদের জন্য আলাদা একটা হাসপাতালে ব্যবস্থা করা যায় কি না। তাদের একটা ডিমান্ড ছিল। এজন্য আমরা প্রাথমিকভাবে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কথা বলেছিলাম। হাসপাতালটি নতুন, পরিচ্ছন্ন আছে। এখনো সেভাবে ব্যবহার করা হয়নি। এজন্য তাদের দেখানো হয়েছে। সেখানে সব কিছু ঠিকঠাক করে অন্যান্য রোগীর পাশাপাশি বিদেশিরাও চিকিৎসা নেবেন।’

গতকাল সংবাদ প্রকাশিত হয়, করোনাভাইরাস যদি বাংলাদেশের কোনো ভিআইপি, বিত্তশালী এবং দেশটিতে অবস্থানরত বিদেশি নাগরিকেরা আক্রান্ত হন, তাহলে তাদের জন্য আলাদা হাসপাতাল প্রস্তুত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এজন্য ঢাকার একটি হাসপাতাল নির্দিষ্ট করা হয়েছে এবং বেসরকারি কয়েকটি বড় হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এ নিয়ে কথাবার্তা চলছে বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে। এ খবর প্রকাশের পরই শুরু হয় সমালোচনা।