বিশ্বজুড়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২ লাখ ছাড়াল

১১:০৩ অপরাহ্ন | শনিবার, এপ্রিল ২৫, ২০২০ আন্তর্জাতিক
korn

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) মহামারিতে বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দুই লাখ ছাড়িয়েছে। চীনের উহান শহরে প্রথমবারের মতো এই ভাইরাস শনাক্তের চার মাস পূর্ণ হওয়ার কাছাকাছি এসে বিশ্বের এই পরিস্থিতি দাঁড়াল।

আন্তর্জাতিক জরিপকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, বিশ্বে ২ লাখ ৪০৫ জন করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ লাখ ৬৭ হাজার ৭৭৮ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮ লাখ ১৯ হাজার ৩১০ জন।

চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসটিতে এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২১০টি দেশ ও অঞ্চল আক্রান্ত হয়েছে। গত দুই সপ্তাহেই বিশ্বে করোনায় এক লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে সাড়ে ১০ লাখের মতো। তবে স্বস্তির বিষয় হলো, সপ্তাহখানেক ধরে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া প্রায় সব দেশেই সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার কমছে।

আক্রান্ত ও মৃত উভয় সংখ্যার দিক থেকেই বিশ্বে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৯ লাখ ২৯ হাজার ৮৪১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫২ হাজার ৮৪৩ জনের। সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ১০ হাজার ৫০৪ জন।

মৃতের হিসাবে তালিকার দ্বিতীয়তে রয়েছে ইতালি। এছাড়া ইউরোপ মহাদেশে শীর্ষে রয়েছে এ দেশটি। সেখানে করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ২৬ হাজার ৩৮৪ জনের। আর আক্রান্ত হয়েছে এক লাখ ৯৫ হাজার ৩৫১ জন।

তৃতীয় স্থানে রয়েছে স্পেন। দেশটিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২২ হাজার ৯০২ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ২৩ হাজার ৭৫৯ জন।

গত ৩১ ডিসেম্বর উহানে নতুন করোনাভাইরাস শনাক্তের কথা জানায় চীন। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, সেখানকার একটি বন্য প্রাণীর বাজার থেকে ভাইরাসটি মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছে ৮২ হাজার ৮১৬ জন। এর মধ্যে ৪ হাজার ৬৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সম্প্রতি জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির (ডাব্লিউএফপি) প্রধান ডেভিড বিসলি সম্প্রতি বলেছেন, ‘পরিস্থিতি মোকাবেলায় দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে বিশ্বসম্প্রদায়কে বিজ্ঞতার পরিচয় দিতে হবে। কয়েক মাসের মধ্যেই একাধিক দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হতে পারি আমরা। সত্য হচ্ছে, আমাদের হাতে আর সময় নেই।’

ডাব্লিউএফপির হিসাবে, বর্তমানে বিশ্বে সাড়ে ১৩ কোটি মানুষ তীব্র খাদ্যসংকটে আছে। এসব মানুষের বেশির ভাগই সিরিয়ার মতো যুদ্ধবিধ্বস্ত এবং জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর বাসিন্দা। করোনার কারণে সাড়ে ২৬ কোটি মানুষ খাদ্যসংকটে ভুগতে পারে।

চলতি মহামারিতে পর্যটন থেকে আয় বন্ধ হয়ে যাওয়া, রেমিট্যান্স ধস, নিষেধাজ্ঞাসহ নানা কারণে বিশ্বে এই বিপুলসংখ্যক মানুষের জীবন-জীবিকা হুমকির মুখে পড়েছে।

মহামারিতে শিশুদের সুরক্ষা নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ছে। জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, ‘প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসে শিশুদের সংক্রমণের ঝুঁকি কম হলেও এ নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। বিশ্বের সব পরিবার ও সব পর্যায়ের নেতাদের প্রতি শিশুদের সুরক্ষার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। বৈশ্বিক মন্দা এগিয়ে আসছে; এতে ২০২০ সালে হাজার হাজার শিশুর মৃত্যু হতে পারে।’